নিজের অক্ষমতা খুলে বলুন সাহসের সাথে

আরিফের সম্প্রতি প্রমোশন হয়েছে। নতুন কাজের দায়িত্ব পেয়েছেন তিনি। একইসাথে তিনি ভীষণ উদ্বিগ্নও বটে। কারণ তার রয়েছে ডিস্লেক্সিয়া ইন্টারফেরেস। এটি এমন একটি সমস্যা যা প্রভাব ফেলে পড়া এবং বানান করার দক্ষতার উপর। আরিফ ভাবছেন, বিষয়টি উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানাবেন কিনা! তার আশঙ্কা হল, এই সমস্যার কথা সবাই যদি জেনে যান, তাহলে হয়ত যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন উঠবে। এমনকি সবসময় তাকে ভিন্নভাবে বিচার করা হতে পারে। আরিফ সিদ্ধান্ত নিলেন, তিনি কাউকে জানাবেন না।

শুধু আরিফ নয়, পেশাগত ক্ষেত্রে নিজের অক্ষমতাকে লুকিয়ে রাখেন অনেকেই। তাদের মাঝে একটি ভয় কাজ করে। সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন হতে চান না কেউই। কিন্তু সাম্প্রতিক গবেষণা বলছে, সমস্যা বা নিজের অক্ষমতা লুকিয়ে রাখাই আপনার ক্যারিয়ারে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে বেশী।

মানসিকভাবে আপনাকে অনেক মূল্য দিতে হয় এই গোপনীয়তার। যেমন-

জ্ঞানীয় সম্পদ হ্রাস পায়
আপনার একটি অক্ষমতা থাকলেও একইসাথে রয়েছে আরও অনেক যোগ্যতা। কিন্তু এই বিষয়টি গোপন রাখতে গিয়ে আপনি এর প্রতি অধিক মনোযোগ দিচ্ছেন।একজন ব্যক্তি তার পরিচয় গোপন করা নিয়ে এতই চিন্তিত হয়ে পড়েন যে সেই বিষয়টিই তাকে আচ্ছন্ন করে রাখে । এর ফলে কাজের জন্য শ্রম দেওয়া হয় কম, যেখানে যথাযথ শ্রম দিলে আপনি হয়ত আপনার সর্বোচ্চ যোগ্যতার প্রমাণ দিতে পারতেন ।

প্রতারণার অপরাধবোধ
একজন ব্যক্তি যখন তার এমন গুরুত্বপূর্ণ তথ্য গোপন করে তখন তিনি সারাক্ষণই হীনমন্যতায় ভুগতে থাকেন। কারণ তার মনে হতে থাকে, তিনি সবার সাথে প্রতারণা করছেন। নিজের অসততার জন্য তিনি লজ্জিত বোধ করেন। ফলে তার আত্মবিশ্বাস কমে যায় এবং চাকরির প্রতি সন্তুষ্টিও কমে আসে।

সামাজিক যোগাযোগ ক্ষতিগ্রস্থ করে
পরিচয় লুকিয়ে রাখা হয়ত স্বল্প সময়ের জন্য বৈষম্য এবং অপমান থেকে রক্ষা করে। কিন্তু দীর্ঘদিন লুকিয়ে রাখার ফল হতে পারে মারাত্মক। আপনার সমস্যাটির কারণেই হয়ত আপনার কাজের মান নেমে চলেছে। অন্য কোথাও শ্রম দিলে হয়ত আপনি ভাল করতে পারতেন। এভাবে আপনি নিজেই নিজের ক্ষতি করছেন।

সামাজিক দিক-

সম্পর্ক তৈরিতে বাঁধা
সামাজিক সম্পর্ক তৈরির ক্ষেত্রে নিজের তথ্য প্রদান করা খুবই জরুরি। মানুষ যখন নিজের সম্পর্কে তথ্য গোপন করেন তখন তিনি চাইলেও কারও সাথে ঘনিষ্ঠ বন্ধুত্ব তৈরি করতে পারেন না। কারণ বন্ধুত্বে পারস্পারিক শেয়ারিং খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা তাদেরকেই বেশী পছন্দ করি যারা নিজেদের সহজে প্রকাশ করেন, স্বচ্ছতা বজায় রাখেন।

জনপ্রিয়তা তৈরি করে না
মানুষ তার সাথে মিশতে খুব একটা স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে না যে নিজেকে সর্বদা লুকিয়ে রাখে। লুকিয়ে রাখার প্রবণতা এক ধরণের কৃত্রিমতা তৈরি করে। অন্যরা সেটা এড়িয়ে যেতেই পছন্দ করে । যেখানে আপনি একটি পেশাদার পরিচয় গড়ে তুলতে চান সেখানে গোপনীয়তা আপনাকে কম বিশ্বস্ত হিসেবে প্রতীয়মান করে এবং আপনার সম্পর্কে খারাপ ইম্প্রেশন তৈরি করে।

প্রকৃতপক্ষে, আপনার অক্ষমতা নিয়ে আপনার লজ্জিত হওয়ার কিছু নেই। কারণ এটি আপনার অপরাধ নয়। অক্ষমতা নিয়ে ভুল দিকে শ্রম দিতে গিয়ে অযোগ্য প্রমাণিত হওয়ার চেয়ে সেটাকে স্বীকার করে সঠিক ক্ষেত্রে শ্রম বিনিয়োগ করলে জীবনে সফল হওয়ার সম্ভাবনা বেশী। অফিস এবং সামাজিক ক্ষেত্রেও সেই পরিবেশ তৈরি হওয়া জরুরি যাতে একজন মানুষ নির্দ্বিধায় নিজের সমস্যা খুলে বলতে পারেন।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top