শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার দাবি

স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া ও আর্থিক সহায়তার দাবি জানিয়েছেন কিন্ডারগার্টেনের শিক্ষকরা। মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানায় বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন স্কুল অ্যান্ড কলেজ ঐক্য পরিষদ (বিকসকপ)।

লিখিত বক্তব্যে সংগঠনের চেয়ারম্যান এম ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, ১৬ মার্চ সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করায় কোনো প্রকার প্রস্তুতি ছাড়াই সঙ্গে সঙ্গে কিন্ডারগার্টেনগুলো বন্ধ ঘোষণা করি। যা আজও বন্ধ আছে। আরো কত দিন বন্ধ থাকবে জানা নেই।

তিনি বলেন, এই সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো শিক্ষার্থীদের মাসিক টিউশন ফিয়ের ওপর নির্ভরশীল এবং ৯৯ শতাংশ ভাড়া বাড়িতে প্রতিষ্ঠিত ও পরিচালিত। শিক্ষার্থীদের মাসিক টিউশন ফিয়ের ৪০ শতাংশ বাড়ি ভাড়া, ৪০ শতাংশ শিক্ষক শিক্ষিকা, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দের বেতন, বাকি ২০ শতাংশ গ্যাস বিল, বাণিজ্যিক হারে বিদ্যুৎ ও পানির বিলসহ অন্যান্য খরচ নির্বাহ না হওয়ায় অনেক প্রতিষ্ঠানে ভর্তুকি দিতে হয়।

এম ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, করোনায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীরা টিউশন ফি দিচ্ছে না। ফলে প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ার মত অবস্থা হয়েছে। কিছু প্রতিষ্ঠান বন্ধও হয়ে গেছে। তাই প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের আকুল আবেদন, তিনি যেন আমাদের দাবি দুটি মেনে নেন।

সংগঠনের মহাসচিব মো. সাফায়েত হোসেন বলেন, অফিস থেকে শুরু করে বিনোদন পার্ক পর্যন্ত খোলা হয়েছে। শিক্ষার্থীরা কেউ ঘরে বসে থাকছে না। তবে শুধুমাত্র কিন্ডারগার্টেন বন্ধ থাকায় আমরা মানবেতর জীবন যাপন করছি।

সংবাদ সম্মেলনে আরো বক্তব্য রাখেন- হাবিব উল্লাহ, এ বি সিদ্দিক, আনিসুর রহমান, শাওন আহমেদ, তাহেরা আক্তার ডলি প্রমুখ।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top