সাত কলেজের ২৩৯৯ ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য ফাঁস

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের ফেসবুক ব্যবহারকারী ২৩৯৯ জন শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও সংশ্লিষ্টদের অ্যাকাউন্ট থেকে ব্যক্তিগত তথ্য ফাঁস হয়েছে। সবচেয়ে বেশি ঢাকা কলেজের ১৩৯২ জনের তথ্য প্রকাশ হয়েছে। সরকারি তিতুমীর কলেজের ৫২৬ জন, সরকারি বাঙলা কলেজের ১৮৯ জন, ইডেন মহিলা কলেজের ১৩৪ জন, কবি নজরুল সরকারি কলেজের ৭৮ জন, শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজের ৬৯ জন ও বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজের ১১ জনের তথ্য প্রকাশ হয়েছে।

তবে এই ২৩৯৯ জনের ফেসবুক আইডিতে কলেজগুলোর নাম যুক্ত রয়েছে। এছাড়া আইডিতে কলেজের নাম যুক্ত নেই এমন অনেকেই থাকতে পারেন, তাই তাদের কলেজের শিক্ষার্থী হিসেবে চিহ্নিত করা সম্ভব হচ্ছে না। আইডি খোঁজার ক্ষেত্রে ‘Dhaka College, ঢাকা কলেজ, Eden Mohila College, ইডেন মহিলা কলেজ, সরকারি তিতুমীর কলেজ, Titumir College, বাঙলা কলেজ, Bangla college, Shahid Suhrawardy College, শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ, Begum Badrunnessa government College, বেগম বদরুন্নেসা মহিলা কলেজ কিওয়ার্ড ব্যবহার করা হয়েছে।

ফাঁস হওয়া তথ্যের মধ্যে রয়েছে ফেসবুক ব্যবহারকারীর ফোন নম্বর, ফেসবুক আইডি, নাম, ঠিকানা, জন্মতারিখ, প্রোফাইল এবং  ইমেইল। এ তালিকায় বিভিন্ন কলেজের  শিক্ষক-শিক্ষার্থী এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারী রয়েছেন।

সম্প্রতি ১০৬টি দেশের ৫৩ কোটি ৩০ লাখ ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য হ্যাকিংয়ের শিকার হয়। এর মধ্যে বাংলাদেশের মোট ৩৮ লাখ ১৬ হাজার ৩৩৯ জনের তথ্য রয়েছে। এই তথ্য প্রকাশ করে একটি লো-লেভেল হ্যাকিং প্ল্যাটফর্ম প্রযুক্তি বিশ্বে সাড়া ফেলেছে। এতে ব্যবহারকারীর ফোন নম্বরসহ অ্যাকাউন্টে থাকা ব্যক্তিগত সব তথ্য ফাঁস করেছে চক্রটি। অনেকটা বিনামূল্যে এসব তথ্য অনলাইনে বিক্রি করা হচ্ছে বলে রয়টার্সের প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।

অবশ্য ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বলছে, তথ্য ফাঁসের ঘটনাটি পুরোন এবং এটি ঘটেছে ২০১৯ সালে। বছর দেড়েক আগেই নিরাপত্তার ফাঁকফোকরগুলো বন্ধ করা হয়েছে। তবে বিভিন্ন দেশের সরকার এখন এ নিয়ে তদন্ত চালাচ্ছে।

এ বিষয়ে সাইবার-৭১ পরিচালক আবদুল্লাহ আল জাবের হৃদয় জানান, ফেসবুক কর্তৃপক্ষ এরইমধ্যে বলেছে এই তথ্যগুলো দিয়ে ক্ষতিসাধন করা সম্ভব নয়। তাই এই বিষয়ে খুব বেশি উদ্বিগ্ন হওয়ার মতো কিছু নেই। তবে সতর্কতার জন্য প্রাথমিকভাবে ব্যবহারকারী মোবাইল নাম্বার পরিবর্তন করে রাখতে পারেন।

ঢাকা কলেজের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সহকারী প্রোগ্রামার ইয়াসিন তানভীর বলেন, এভাবে ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য ফাঁস হওয়ার দ্বায়ভার অবশ্যই ফেসবুক কর্তৃপক্ষকে নিতে হবে ৷ এসব তথ্য ফাঁস হওয়ার পেছনে ব্যবহারকারীর অসাবধানতাও থাকে৷ আমরা না জেনে অনেক সময় নানান ধরনের মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করি যেগুলোতে আমাদের প্রাইভেসি একসেস দিয়ে থাকি ৷ যার ফলে আমাদের তথ্য সহজেই কোন থার্ড পার্টির কাছে চলে যায়। তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারের ক্ষেত্রে ব্যবহারকারীকেই সর্বপ্রথম সচেতন হবে মনে করছেন তিনি ৷

উল্লেখ্য, ফেসবুক ব্যবহারকারীরা এই ওয়েবসাইট: https://haveibeenpwned.com/ থেকে এখন জেনে নিতে পারবেন তাদের ইমেইল ঠিকানা এবং মোবাইল ফোন নাম্বারও ফাঁস হয়েছে কিনা।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top