বিপথগামী শিক্ষার্থীর জন্যে ভালোবাসাই কি একমাত্র দায়ী?

ভালোবাসা ভালো নয়! কথাটা শুনলেই অনেকে মাথা নাড়বেন। অনেকে এপাশ-ওপাশ মাথাটাকে ঘুরিয়ে কিংবা সম্মতি দিয়ে বুঝিয়ে দেবেন আসলেই ভালোবাসা ভালো নয়। বিশেষ করে শিক্ষার্থীদের জন্যে তো নয়ই! কেন কেন?

ভালোবাসলে ক্ষতিটা কি শুনি? পড়াশোনার সাথে ভালোবাসার বিরোধটা কোথায়? অভিজ্ঞ মানুষেরা হয়তো নিজেদের অভিজ্ঞতার ঝুলি থেকেই কিছু ঘটনার উদাহরণ দেখিয়ে সবাইকে বোঝাতে চান যে তাদের জীবনে ভালোবাসা ভালো হয়ে আসেনি। সুতরাং অন্যদের ক্ষেত্রেও এটাই সত্যি! এটা ঠিক যে ভালোবাসার অনুভূতি একটি বিশেষ হরমোনের জন্ম দেয় আমাদের শরীরে। এতে করে অন্যান্য কাজগুলোর কথা প্রায়ই মনে থাকেনা কিংবা মনে করতে ইচ্ছে করেনা। এক ধরনের মোহ কাজ করে। কিন্তু তাই বলে কি শিক্ষার্থীদেরকে বিপথে নিয়ে যাওয়ার জন্যে একমাত্র ভালোবাসাই দায়ী? আসুন জেনে নিই এ প্রজন্মের কিছু তরুন-তরুনীর ভাবনা থেকে এই প্রশ্নের উত্তর।

প্রথমেই প্রশ্নটা ছুঁড়ে দেওয়া হল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল শিক্ষার্থীর কাছে। সেখানেই আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী দেলোয়ার রিয়াদ বলেন- “ভালোবাসাই কেবল দায়ী? আমার মনে হয়না। এটা একটা রঙ্গীন অনুভূতি। যদি সেটা কাউকে রাঙাতে পারে তাহলে সেটা উপভোগ করাই উচিত।“

একই বিভাগের অন্য শিক্ষার্থী ইসমাত জাহান লিপি বলেন- “ ভালোবাসা যেকোন মানুষকে যখন-তখনই বিপথে নিয়ে যেতে পারে। সেটা কেবল শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য নয়। “

পাশ থেকে তানজিমা হোসেন তৃণা নামের আরেক শিক্ষার্থী জানান- “ ভালোবাসা মানুষকে বিপথেও নিয়ে যেতে পারে আবার পথেও ফেরাতে পারে। তবে সেটা নির্ভর করছে পরিস্থিতির উপর। “

আরেক শিক্ষার্থী মাসুদ আমিন আজাদ মন্তব্য করেন- “ দুটোই। কখনো ভালোবাসা অনুপ্রেরণা দেয়। আবার কখনো ঝামেলায়ও ফেলে।“

তবে এই বিভাগেরই আরেক শিক্ষার্থী সুব্রত ভক্ত শোভন বলেন- “ কি করে বলব? প্রেমে কখনো পড়িনি। তবে তারপরেও আমি ঠিক পথে নেই। “

বেশ শক্তভাবে ভালোবাসার পক্ষে বললেন দলের আরেকজন, নাফিসা ইসলাম ফারিবা। “ ভালোবাসা বিচ্যুতি নয়, শক্তি! “ ভালোবাসা নিয়ে বলতে গিয়ে বলেন তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজের ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী শাহাদাত শাহেদ বলেন- “ মনে হয়না কেবল ভালোবাসাই দায়ী। পারিবারিক সংকট, সঙ্গদোষ, আর্থিক অনটন- এ সবকিছুই একজন শিক্ষার্থির বিপথে যাওয়ার জন্যে দায়ী। “

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পেরিয়ে যাওয়া হয়েছিল আরো বেশ কিছু শিক্ষার্থীর কাছে। তাদেরকেও ভালোবাসা ভালো নাকি নয়, আর শিক্ষার্থীদের বিপথে যাওয়ার এটাই একমাত্র কারণ কিনা জানতে চাওয়া হলে নিজেদের মতামত জানান তারা। বিনিময় করেন তাদের ভাবনাগুলো।

অনেকটা সময় নিয়ে ভেবে মানারাত বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নালিজম এন্ড মিডিয়া স্টাডিজের ২য় বর্ষের ছাত্র মোহাম্মদ আসাদুল্লাহ বলেন- “ প্রেম, ক্যারিয়ার, আশাহত স্বপ্ন- সবগুলোই দায়ী। তবে প্রেমটাই বেশি দায়ী। “

অন্যদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালযের ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের ছাত্রী শর্মিষ্ঠা দত্ত বলেন- “ আমার মনে হয় প্রেমের কারণেই শিক্ষার্থীরা বেশি বিপথে যায়। “

ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ছাত্রী আকন্দ শিরোপা বলেন- “কেবল ভালোবাসা নয়। আরো অনেক কিছুই একজন শিক্ষার্থীকে বিপথে নিয়ে যেতে পারে। তবে পথেও আনতে পারে।“

সত্যি বলতে কি ভালোবাসা নিয়ে এই শিক্ষার্থীদের ভাবনা জানার পর এতটুকু বোঝা যায় যে তাদের বেশিরভাগই মনে করছেন যে কেবল ভালোবাসা নয়, আরো অনেক ব্যাপার দাযী থাকে একজন শিক্ষার্থীকে পথচ্যুত করার পেছনে। কারণ একটা মানুষের জীবনে কখনো ভালোবাসাই সব নয়। জীবন মানে হাজারটা আবেগ, অনুভূতির জায়গা। যেখানে একটা ছোট্ট কোণ জুড়ে থাকে ভালোবাসা। আর তাই কেউ যদি নিজের জীবনকে ভূল পথে বা অন্ধকার রাস্তায় নিয়ে যেতে চায় তার অবশ্যই উচিত এটা নিশ্চিত করা যে কারণটি ভালোবাসা নয়। কারণ, ভালোবাসা মানুষের জীবনকে সুন্দর করার জন্যে আসে, ধ্বংস করে দিতে নয়!

 

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top