পর্নো ‘আসক্তি’ অস্বাভাবিক নয়

এক সময় ফুটবলার হিসেবে পরিচিত ছিলেন টেরি ক্রিউজ। তবে তার পরিচয়টা এখন পাল্টে হয়েছে অভিনেতা। টিভি ও সিনেমার পরিচিত মুখ হয়ে উঠছেন টেরি। পর্নোগ্রাফি তার জীবনে কী রকম ভয়াবহ প্রভাব ফেলেছে,  সেসব কথা বেশ কয়েকদিন ধরেই ভিডিও আকারে ফেসবুকে পোস্ট করছেন। ধারাবাহিকভাবে পোস্ট করা ভিডিও সিরিজটির নাম তিনি দিয়েছেন ‘ডার্টি লিটল সিক্রেটস’।

এসব ভিডিওতে নিজের অতিরিক্ত পর্নো আসক্তি নিয়ে সরাসরি কথা বলার পাশাপাশি এ আসক্তির জন্য জীবনে যেসব চরম মূল্য তাকে দিতে হয়েছে, তাও খোলাখুলিভাবে বলেছেন। সেই ১২ বছর বয়স থেকে পর্নো আসক্তি ছিল টেরির। তার ভিডিওগুলো ইন্টারনেটে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। সবাই তার এমন সাহসী উদ্যেগেরও প্রসংশা করেছেন।

তিনি বলেন, ‘পর্নোগ্রাফি নানাভাবে আমার জীবনকে ধ্বংস করেছে। দিন গড়িয়ে রাত হওয়ার পরও যদি আপনি পর্নোগ্রাফি দেখতে থাকেন, তাহলে বুঝতে হবে আপনার বড় ধরনের সমস্যা আছে। আমারও একই সমস্যা ছিল।’

এ আসক্তির কারণে তার সংসার প্রায় ভেঙে যাওয়ার উপক্রম হয়েছিল। স্ত্রীর কাছ থেকে সাময়িকভাবে আলাদাও থাকতে হয়েছিল তাকে।

টেরির উদ্যোগে সামিল হয়ে অনেকেই তাদের পর্নো আসক্তির কথা জানাচ্ছেন ফেসবুকে।

পর্নো আসক্তি আসলে একটি বিতর্কিত টার্ম। ডায়াগনস্টিক এন্ড স্ট্যাটিসটিক্যাল ম্যানুয়েল ‘পর্নো আসক্তিকে’ মানুষের অস্বাভাবিকতার তালিকায় স্থান দেয়নি। অনেক বিশেষজ্ঞই বলেন, যারা পর্নো দেখেন তাদের মস্তিষ্ক মোটেও মাদক গ্রহণকারীদের মতো বিকৃত নয়। যদিও এ নিয়ে পরস্পরবিরোধী অনেক মন্তব্য আছে। ইউনিভার্সিটি অব ক্যামব্রিজের একদল গবেষক পর্নো আসক্ত ১৯ তরুণের উপর গবেষণা করে দেখেছেন, মাদকাসক্তদের সাথে পর্নো আসক্তদের এক জায়গায় মিল আছে। মাদক গ্রহণকারী তার পছন্দের মাদক দেখলে মস্তিষ্কের যে স্থানটি উদ্দীপ্ত হয়, পর্নো আসক্ত ব্যক্তির উদ্দীপীত হওয়ার স্থানটিও একই।

আবার ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার গবেষক নিকোল প্রজ পর্নো আসক্ত আর মাদকাসক্তদের একই কাতারে ফেলতে নারাজ।

বিবিসি ট্রেন্ডিং রেডিওকে তিনি বলেন, ‘অন্যান্য আসক্তদের সাথে পর্নো আসক্তদের ব্রেনের মিল আছে বটে, তবে সেটা অবশ্যই একটা নির্দিষ্ট সীমা পর্যন্ত।  আপনি দেখবেন, যারা জুয়া খেলে তাদের ব্রেন পর্নো আসক্তদের ব্রেনের তুলনায় বেশি সক্রিয়।’

বিজ্ঞান অনুসারে, অতিরিক্ত পর্নো দেখাকে আসক্তি বলা যাবে না বলে দাবি করেন প্রজ।
তবে অতিরিক্ত পর্নো দেখাকে ‘আসক্তি’ না বললেও হাজার হাজার তরুণ, যারা পর্নোগ্রাফি দেখার বিরুদ্ধে প্রতিনিয়ত সংগ্রাম করে যাচ্ছেন, তাদের কাছে বিষয়টি মোটেও অত সহজ নয়। অনলাইনে অগণিত তরুণ তাদের পর্নো অবসেশন এবং এর ফলে তাদের শারীরিক ও মানসিক দুরবস্থার কথা জানাচ্ছেন।

একেবারে তরুণ বয়স থেকে পর্নো দেখার অভ্যাসের কথা জানিয়ে টম (আসল নাম নয়) নামে একজন লিখেছেন, ‘আপনি হয়ত শুনে থাকবেন পর্নো দারুণ জিনিস। কিন্তু মোটেও তা নয়।’ বরং পর্নোর সাথে বাস্তবের সম্মিলন না ঘটাতে সতর্ক করে দিচ্ছেন এ ভুক্তভোগী। টম লিখেছেন, ‘এমনও সপ্তাহ গেছে, যখন প্রতি রাতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা পর্নো দেখতাম আমি।’
তবে বিজ্ঞানীরা যাই বলুন না কেন, নিজেকে পর্নো আসক্ত বলেই মনে করেন টম। দুই বছর ধরে পর্নো দেখা বন্ধ করার চেষ্টা  করেছেন তিনি। গত ৯০ দিন ধরে সেটা অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে আনতে পেরেছেন, কিন্তু টম এখনও মনে করেন পর্নোর সাথে তার যুদ্ধ চলছে।
কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top