বৃষ্টি উপেক্ষা করে বুটিক হাউজগুলোতে ক্রেতাদের ভিড়

ঈদকে সামনে রেখে বিভিন্ন বুটিক হাউজগুলো জমে উঠেছে। ক্রেতাদের কথা মাথায় রেখে দেশীয় ডিজাইনের বিভিন্ন রঙের পোশাক দিয়ে সাজানো হয়েছে বুটিক হাউজগুলো। আর ক্রেতারাও দেশীয় পোশাক কিনতে ভিড় করছেন রাজধানীর বিভিন্ন বুটিক হাউজগুলোতে।

শনিবার দেশ সেরা ‘আড়ং’ বুটিক হাউজ ঘুড়ে দেখা গেলো পরিবারের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে বৃষ্টির উপেক্ষা করে ভিড় করছে ক্রেতারা। নিজেদের পছন্দ মতো কেনাকেটায় ব্যস্ত তারা।

তবে এখানকার বিক্রেতারা বলছেন, গত তিন-চার দিন ধরে বৃষ্টি থাকার কারণে ক্রেতাদের উপস্থিতি একটু কম। প্রকৃতি স্বাভাবিক হয়ে গেলে আশা করছি কেনা-বেচা এ বছর ভালো হবে।

শারমিন রহমান বৃষ্টির বাধা পেড়িয়ে কেনা-কাটা করতে চলে এসেছেন। বললেন, এখন থেকে যদি কেনা-কাটা শুরু না করি তাহলে শেষ করতে পারবো না।

আড়ংসহ বিভিন্ন বুটিকে এবার দেশীয় লং কামিজ, ফ্রক, দেশীয় স্টাইলে’র কুর্তা, বুটিক, বাটিকসহ ভিন্ন নকশায় পোশাকের পসরা সাজিয়েছে। ক্রেতাদের মধ্যে দেশীয় পোশাকের আগ্রহ ছিলো খুব বেশি। 

অনেক ক্রেতারা বলছেন, দেশীয় পোশকগুলো আমাদের ঐতিহ্য। এবং রুচিসম্পন্ন। বাইরের পোশাকের চেয়ে দেশীয় পেশাকগুলোর কাপড়, রঙ সুন্দর হয়। তবে বাইরের পোশাকের তুলনায় দেশীয় পোশাকের দাম একটু বেশি।

বুটিক হাউজগুলোর সম্ভার দেশী দশেও একই চিত্র। সেরা দশটা বুটিক হাউজগুলো তাদের নতুন কালেকশন নিয়ে বসেছে ঈদ উপলক্ষে। ফ্যাশন হাউজ ‘রঙ’ যেকোনো উদযাপনের সময় ভিন্ন নকশার ও ডিজাইনের শাড়ীর কালেকশন রাখে। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। তাই তরুণীরাও তাদের পছন্দ মতো ‘রঙ’ থেকে বেছে নিচ্ছেন পছন্দের সেরা শাড়ীটি।

ফ্যাশন হাউজ ‘নগরদোলা’ এবার ঈদে পাঞ্জাবী দিয়ে তাদের কালেকশন সম্ভার সাজিয়েছে। ভিন্ন রঙের ও বাহারি ডিজাইনের পাঞ্জাবীগুলো কিনতে তাই নগরদোলায় ভিড় করছে ক্রেতারা।

এছাড়া অঞ্জনস্, সাদা কালো, সৃষ্টি, দেশালসহ সেরা ফ্যাশন হাউজগুলো দেশীয় পণ্য নিয়ে তাদের ঈদ কালেকশন সাজিয়েছে। বিক্রেতাদের এখন শুধুই অপেক্ষা ক্রেতারা কখন তাদের প্রিয় জিনিসটি ক্রয় করবেন।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top