ছাতা ধরো হে…

বৃষ্টির দিনে ভিজতে কার না ভালো লাগে। কিন্তু জরুরি কাজে যখন বের হতে হয় তখন বৃষ্টি দেখলে লাগে বিরক্ত। আর তাই ছাতা বা রেইনকোট ছাড়া কোন উপায় থাকে না তখন। আগে সবাই শুধু ছাতা ব্যবহার করতো। কিন্তু এখন বিভিন্ন ধরনের রেইনকোটও বাজারে পাওয়া যায়। ছাতার একটা বিখ্যাত গল্প আছে। এক মনভুলা লোক সব সময় ছাতা ভুলে ফেলে আসে আর বাসায় এসে বউয়ের বকা খায়। তো একদিন সে বাসায় ফিরে এসেই খুব গর্ব করে বউকে বলছে, আজকে দেখো আমি ভুলিনি, ঠিকই ছাতা নিয়ে এসেছি। তখন বউ বলে ওঠে, ‘তুমিতো আজকে ছাতা নিয়েই বের হওনি। কার ছাতা নিয়ে এসেছো?’ এই হচ্ছে ছাতার গল্প। ছাতা এমন এক বিষয় যা হারায়নি এমন লোক খুঁজে পাওয়া যাবে না। এই বর্ষায় আপনিও হয়তো নিজের প্রিয় ছাতাটি খুঁজে পাচ্ছেন না। চিন্তা করছেন ছাতা কেনার। আসুন জেনে নেয়া যাক ছাতার ধরণ ও দরদাম।

বাজারে বিভিন্ন ধরণের ছাতা পাওয়া যায়। তার মধ্যে বাজার দখল করে আছে চাইনিজ ছাতা। যদিও এখন দেশি অনেক কোম্পানিই অটো ছাতা তৈরি করে থাকে। আগে শুধু এক ধরনের দেশি ছাতাই পাওয়া যেত। কালো কাপড়ের শরীফ ও এটলাস ছাতা। এগুলো ছোট বড় দুই সাইজের পাওয়া যায়। বড়গুলোর দাম পড়ে ১৫০ টাকা করে। আর ছোটগুলো ১৩০ টাকা। এরপর আসে অটো টিপ ও ম্যানুয়াল ছাতা। ম্যানুয়াল ছাতা ধাক্কা দিয়ে খুলতে ও বন্ধ করতে হয়। অটো টিপ ছাতা আবার দুই ধরনের। থ্রি ফোল্ডিং ও টু ফোল্ডিং। থ্রি ফোল্ডিং ভালগুলোর দাম পড়বে ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা। আর টু ফোল্ডিংগুলোর দাম পড়বে ২৫০ থেকে ৩৫০ টাকা। ম্যানুয়ালগুলোর দাম হচ্ছে ১৭০ টাকা থেকে ২৫০ টাকা।

এছাড়া বাচ্চাদের জন্যও বিভিন্ন ধরনের ছাতাও পাওয়া যায় ১২০ টাকা থেকে ২০০ টাকার মধ্যে। বাচ্চাদের জন্য শিং ছাতাও পাওয়া যায়। এগুলো খুললে উপরে শিং এর মতো উচু হয়ে থাকে। বাচ্চাদের বিভিন্ন ছাতায় আবার বাঁশিও সংযুক্ত থাকে। মূলত বাচ্চাদের মজা দেয়ার জন্যই এই ধরনের ছাতা তৈরি করা হয়েছে।

গাউছিয়া, মৌচাক, আনারকলি মার্কেট, গুলশান ডিসিসি মার্কেট, কচুক্ষেত বাজার মার্কেট, ইস্টার্ন প্লাজা, নিউমার্কেট, গুলিস্তান, বসুন্ধরা সিটি শপিংমলসহ প্রায় সব মার্কেটেই সব ধরনের ছাতা পাওয়া যায়। কিন্তু পাইকারি ছাতা কিনতে হলে যেতে হবে পুরান ঢাকা। চক বাজারের খান মার্কেট পাইকারি ছাতার জন্য বিখ্যাত।

ছাতা কেনার সময় যা মাথায় রাখবেন
১. যে ছাতাটি আপনি কিনবেন তার কাপড়টা ভালোভাবে দেখে নিয়ে কিনতে হবে।
২. ছাতার হাতলের অংশটি টেকসই এবং মজবুত কি না দেখুন।
৩. যদি টিপ বাটনের ছাতা কিনতে চান, তাহলে ছাতার টিপ বাটনটা ঠিকমতো কাজ করে কি না, সেটা যাচাই করে নিতে হবে।
৪. ছাতার প্রতিটি রড ঠিকমতো লাগানো আছে কি না, তা বারবার খুলে বন্ধ করে দেখে নিতে হবে।
৫. ছাতার ওপরের মাথার দিকে সুতো দিয়ে লোহার শিকগুলো আটকানো থাকে। সেই সেলাইগুলো ঠিকমতো আছে কি না, দেখতে হবে।
৬. প্যাকেটের ভেতরে ছাতা থাকলে কেনার সময় অবশ্যই খুলে ছাতার প্রতিটি রড একটা আরেকটার সঙ্গে ঠিকমতো জোড়া লাগানো আছে কি না, তা দেখে নিতে হবে।
৭. ছাতার কভারগুলো যত্নে রাখতে হবে।
৮. ছাতা ব্যবহারের পর যদি ভিজে যায় তাহলে কিছুক্ষণ মেলে রেখে পানিটা ঝরিয়ে তারপর ভাঁজ করে ছাতার ব্যাগে রাখতে হবে।
৯. ছাতার ব্যাগটা সব সময় ছাতার সঙ্গে রাখা যেতে পারে।
১০. মেয়েদের ফ্যাশনেবল ছাতায় অনেক সময় পুঁতি কিংবা জরির নকশা করা থাকে। কেনার সময় খেয়াল করতে হবে বৃষ্টিতে ভিজলে এই নকশা যেন নষ্ট না হয়ে যায় কিংবা ছিদ্র হয়ে পানি পড়ে আপনি ভিজে না যান।
১১. ছাতা বন্ধ করার সময় ছাতার প্রতিটি অংশ ভাঁজ করে গুছিয়ে নিতে হবে, তা না হলে লোহার রডগুলো ভেঙে যেতে পারে।
১২. এমন ছাতা কিনতে হবে যাতে আপনার পুরো শরীররটা ঢেকে যায়।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top