ফাইভ স্টার হোটেল বৃত্তান্ত (সাধ ও সাধ্যের সমন্বয়)

ফাইভ স্টার হোটেল বলতেই কল্প চোখে ভেসে ওঠে বিশাল আলিশান আলো ঝলমলে একটি ভবন। সাধারণ অনেক মানুষই ভেতরে প্রবেশ করতেই ভয় পান। ভাবেন যে, এখানে কি সবাইকে প্রবেশ করতে দেবে? না জানি কত বিল উঠবে! থাকলে চাইলে লাগবে অনেক খরচ!

কিন্তু সাধারণ মানুষদের জন্যও এখানে রয়েছে ভালো ব্যবস্থা। তাই চাইলেই আপনি আপনার জীবনসঙ্গী বা বন্ধুকে নিয়ে চলে যেতে পারেন ফাইভ স্টার হোটেলে। খেতে পারেন যা খুশি, চাইলে রাতে রুম ভাড়া করে থেকেও যেতে পারেন। এখানে যেমন প্রেসিডেন্টদের জন্য থাকার ব্যবস্থা রয়েছে, তেমনি রয়েছে সাধারণদের জন্যও ডিলাক্স রুম। হোটেল সোনার গাঁর মার্কেটিং ও গণসংযোগ কর্মকর্তা সালমান কবির আমাদের জানান, ডিলাক্স রুমের জন্য ভাড়া গুনতে হবে ১৩/১৪ হাজার টাকা। আর যদি সকালে ব্রেকফাস্ট সহ চান তবে প্রিমিয়ার রুম নেয়াই ভালো। প্রিমিয়ার রুমগুলো ১৭/১৮ হাজার টাকায় পাওয়া যায়।

প্রিমিয়ার রুম ছাড়াও রয়েছে প্যাসিফিক রুম, স্যুট রুম ও ইন্টারন্যাশনাল প্রেসিডেন্সিয়াল স্যুট রুম। সাধারণত বিদেশি অতিথিদের জন্য প্যাসিফিক রুমগুলোই অফার করা হয়। এগুলো প্রতি রাতে থাকার জন্য ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা গুনতে হয়। রুম সার্ভিসের সঙ্গে ব্রেক ফাস্টতো থাকেই সঙ্গে বিকেলের ককটেল আওয়ারও থাকে। বিকেলের এই ককটেল আওয়ারে নাস্তা দেয়া হয়। প্রিমিয়ার রুমে থাকে আলাদা লাউঞ্জ।

স্যুটগুলো সাধারণত পরিবার নিয়েই থাকার জন্য আদর্শ। এখানে বেডরুমের সঙ্গে ড্রইং ও ডাইনিং রুমও থাকে। থাকে বাচ্চাদের জন্য ওয়েলকাম ফ্রুট বাস্কেট, যেখানে বিভিন্ন ফল, বিস্কুট ও বিভিন্ন চকলেট থাকে। স্যুটবাসীদের জন্য আরো বেশ কিছু সুবিধা রয়েছে। তারা চাইলেই সুইমিং পুল, জিম ব্যবহার করতে পারবে। জীম শেষে স্টিম বাথের ব্যবস্থাও আছে। কিন্তু ম্যাসেজ করতে চাইলে আলাদা টাকা গুনতে হবে। প্রতি ৩০ মিনিটের জন্য ৩০০০ টাকা ও ৫০ মিনিটের জন্য ৪০০০ টাকা। এই ম্যাসেজ অবশ্য বাইরের কেউ চাইলেও টাকা দিয়ে করতে পারবেন।

এবার খাবারের কথায় আসা যাক। এখানে বুফে ব্যবস্থা আছে। বুফে ব্যবস্থায় থাকে অনেকগুলো পদ। একবার বিল দিয়ে আপনি যা খুশি তা খেতে পারেন। এজন্য বিল দিতে হবে প্রতিজন মাত্র ২৭০০ টাকা। আর অর্ডার করে খেতে চাইলে বিভিন্ন খাবারের বিভিন্ন দাম পরবে। মাংসের স্টেক ২০০০ টাকা, বার্গার ১০০০ টাকা।

তাহলে খাবারের দাম অনেক বেশি নয়? মনে এমন প্রশ্ন অাসা অস্বাভাবিক নয়। এ বিষয়ে সালমান কবির বলেন, ‘আমরা আসলে শুধু খাবার সেল করি না, খাবারের সঙ্গে একটি অভিজ্ঞতা সেল করি। যেমন এখানে এখন দক্ষিণ আফ্রিকার খেলোয়াড়রা রয়েছেন, আপনি খাচ্ছেন, দেখলেন পাশেই একজন খেলোয়াড়ও খাচ্ছেন। খাওয়া শেষে চাইলে অনুমতি নিয়ে সেলফিও তুলতে পারেন। এটাতো আসলে একটা ফাইভ স্টার হোটেল, এখানে খাবারও একটা অভিজ্ঞতা।’

ইন্টারন্যাশনাল প্রেসিডেন্সিয়াল স্যুটগুলো শুধু প্রেসিডেন্টদের জন্য- তা নয়, চাইলে যে কেউ ভাড়া নিতে পারেন। স্যুটগুলো ভাড়া পড়ে প্রতিদিন ৮ থেকে ৯ শত ডলার যা বাংলা টাকায় ৬৫ থেকে ৭৫ হাজার টাকা। এছাড়া সুইমিং পুলের মেম্বারও চাইলে যে কেউ হতে পারেন। ৬ মাসের জন্য মেম্বারশীপ হচ্ছে ৯৫০০০ টাকা ও বছরের জন্য ১ লাখ পঞ্চান্ন হাজার টাকা

পুরো হোটেলটিতে ৭টি মিটিং রুম রয়েছে, এগুলোতে সংবাদ সম্মেলন করতে চাইলে দিতে হবে দেড় লাখ টাকা। প্রতি কাপ চা কফি এখানে দাম পড়বে ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা। এছাড়া হাজার বারোশো লোকের সমাগমের জন্য রয়েছে বল রুম, যা সাধারণত ৭ লাখ টাকায় ভাড়া দেয়া হয়। এখানে প্রতিজনে খাবারের দাম ৩৫০০। সকলের জন্য খাবারের অর্ডার দেয়া হলে বলরুমের ভাড়া কমানো হয়, কোন কোন ক্ষেত্রে ভাড়া নেয়াও হয় না।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top