শিশুর ঠাণ্ডাজ্বর

মৌসুম বদলের ফলে সৃষ্ট এসব রোগ সাধারণত একজনের কাছ থেকে আরেকজনের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। তাই এ সময়টায় শিশুদের প্রতি একটু বিশেষ নজর দিতে হবে

আবহাওয়া পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে পারিপাশর্ি্বক উষ্ণতার হ্রাস-বৃদ্ধি ঘটে। আর এর প্রভাব পড়ে শিশুদের ওপর। প্রকৃতিতে এখন যদিও হেমন্ত, তবে উষ্ণতা হ্রাস পেয়ে শীতের আমেজ বইতে শুরু করেছে। এ সময় শিশুদের ব্যাপকভাবে সর্দিজ্বর, ঠাণ্ডা লাগা, গলাব্যথা ইত্যাদি রোগে আক্রান্ত হতে দেখা যায়। মৌসুম বদলের ফলে সৃষ্ট এসব রোগ সাধারণত একজনের কাছ থেকে আরেকজনের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। তাই এ সময়টায় শিশুদের প্রতি একটু বিশেষ নজর দিতে হবে। এসব সাধারণ সমস্যা সম্পর্কে জেনে নিন বিস্তারিত।

সাধারণ সর্দিজ্বর :সর্দিজ্বর আমাদের দেশের অত্যন্ত পরিচিত একটি রোগ। একে ঠাণ্ডাজনিত জ্বরও বলা যায়। এটি সাধারণত ভাইরাসজনিত সমস্যা। যেসব শিশুর শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম তারা এ রোগে সহজেই আক্রান্ত হয়। দেখা যায়, প্রতি মৌসুম বদলের সঙ্গে সঙ্গেই এসব শিশু ঠাণ্ডাজনিত সমস্যায় ভোগে। একটানা অতিবর্ষণ, স্যাঁতসেঁতে পরিবেশ, ঠাণ্ডা বা খুব গরম, ঋতু বদল_ এমন অবস্থায় শিশুরা এ রোগে আক্রান্ত হয়।

যেভাবে ছড়ায় :এটি মূলত ভাইরাসজনিত রোগ। তাই হাঁচি-কাশির দ্বারা বাতাসের মাধ্যমে, আক্রান্ত ব্যক্তির সঙ্গে করমর্দনের মাধ্যমে, ব্যবহৃত কাপড় বা টিস্যুর মাধ্যমে, একই বিছানা-বালিশে ঘুমানোর মাধ্যমে এসব রোগ একজন থেকে অন্যজনে ছড়ায়। এ ছাড়াও বই-খাতা, কলম, চায়ের কাপ, গ্গ্নাস, টাকা_ এসবে আক্রান্ত ব্যক্তির স্পর্শে অনেকক্ষণ জীবাণু জীবিত থাকে। এ জিনিসগুলো অন্য একজন স্পর্শ করলে সহজেই সে একই সমস্যায় আক্রান্ত হতে পারে। একত্রে খেলা করে এমন শিশুদের মধ্যে একজনের হলে অন্যজনে আক্রান্ত হওয়ার ঘটনা খুবই সাধারণ। যেসব শিশু স্কুলে যায়, তাদের মধ্যে এই সর্দিজ্বরের প্রাদুর্ভাব আরও বেশি লক্ষণীয়।

ঠাণ্ডাজনিত সমস্যায় করণীয় :এমনিতে এই রোগের জন্য বাড়তি কোনো ওষুধের প্রয়োজন হয় না। প্রত্যেক শিশুর শারীরিক ক্ষমতা অনুযায়ী নিজে নিজেই সেরে যেতে পারে। তবে দ্রুত ভালো হওয়ার জন্য কিছু বাড়তি যত্নের প্রয়োজন আছে। ধুলাবালি থেকে শিশুকে দূরে রাখতে হবে। সব খাবার গরম করে খেতে দিতে হবে, ফ্রিজের কোনো কিছু শিশুকে খেতে দেওয়া ঠিক নয়। কুসুম গরম পানিতে নিয়মিত গোসল করাতে হবে। শিশুকে সবসময় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার চেষ্টা করতে হবে। সর্দিজ্বর থেকে অনেক সময় জটিল রোগও হতে পারে। ঘন ঘন আক্রান্ত হলে নিউমোনিয়ার দিকে অগ্রসর হওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাই দুই-তিন দিনে না কমলে অবশ্যই শিশুকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যেতে হবে।

ঠাণ্ডাজ্বরের লক্ষণ :হঠাৎ নাকে-গলায় সুড়সুড়ির মতো লাগে। কখনও জ্বালা করে। ঘন ঘন হাঁচি হয়। নাক দিয়ে অনবরত পানি ঝরে, কখনও নাক বন্ধ হয়ে যায় এবং শ্বাস নিতে কষ্ট হয়। শরীর ম্যাজম্যাজ করে, ব্যথা অনুভূত হয়, গলাব্যথা, পানি পানে অস্বস্তি, জ্বর জ্বর লাগতে পারে। মাথাব্যথা ও কানব্যথাও থাকতে পারে। এ ছাড়া এর সঙ্গে সাইনোসাইটিস, মধ্যকর্ণের প্রদাহ এমনকি ফুসফুসের প্রদাহ দেখা দিতে পারে।

সর্দিজ্বর সম্পর্কিত টিপস :প্রত্যেকের জন্য আলাদা তোয়ালে, গামছা, রুমাল বা টিস্যু ব্যবহার করতে হবে। এসব নাগালের বাইরে রাখতে হবে। শিশুকে পুষ্টিকর খাবার খেতে দিতে হবে। প্রচুর পানি পান করাতে হবে এবং ভিটামিন সি জাতীয় খাবার বেশি খেতে দিতে হবে। যেমন_ লেবু, কমলা, আমলকী, পেয়ারা ইত্যাদি। হাঁচি-কাশি দেওয়ার সময় শিশুকে মুখে কাপড় বা হাত দেওয়া শিখিয়ে দিতে হবে। যেখানে-সেখানে থুতু, নাকের পানি, কফ ফেলা যাবে না। ঘরের দরজা-জানালা বন্ধ না রেখে বাইরের আলো-বাতাস যাতে প্রবেশ করে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top