ধর্মীয় সম্প্রীতি বা সহাবস্থান মানে শিরকি কার্যকলাপে অংশগ্রহণ নয় : আজহারী

বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটারের পূজা উদ্বোধনের ঘটনায় সারাদেশে মুসলিম জনগনের মধ্যে কঠোর প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একেকজন একেকভাবে এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছেন। বাংলাদেশের ইসলামি বক্তা মিজানুর রহমান আজহারী সম্প্রতি তার ফেসবুক পেইজ থেকে একটি স্ট্যাটাসে তার বক্তব্য তুলে ধরেছেন। স্ট্যাটাসটিতে সোয়া এক লাখেরও মতো রিয়াকশন, ১১ হাজার কমেন্ট এবং ১০ হাজারের বেশি শেয়ার রয়েছে। ইনকিলাবের পাঠকের জন্য স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে দেওয়া হল-
॥ ধর্মীয় স্বতন্ত্রতা, স্বকীয়তা ও পরিমিতিবোধ॥

ধর্মীয় সম্প্রীতি বা সহাবস্থান মানে এই নয় যে অন্যধর্মের শিরকি কার্যকলাপে অংশগ্রহণ অথবা তাদের পূজা পর্বনের উদ্বোধন করা। ইসলামে ধর্মীয় সম্প্রীতি বলতে-আপনার অমুসলিম প্রতিবেশীর সঙ্গে সদাচারণ, তাদের সাথে প্রয়োজনীয় হালাল ব্যবসায়িক লেনদেন, ক্রয়বিক্রয়, সামাজিক সৌহার্দ্যপূর্ণ আচরণ এবং বিপদে কিংবা দুর্যোগে মানবিক সহায়তা প্রদান ইত্যাদিকে বুঝায়।

তাছাড়া বাধ্যতামূলকভাবে অমুসলিমদের ধর্মীয় অনুষ্ঠানে যাদের এফিলিয়েটেড থাকতে হয়, তাদের আলাপ ভিন্ন। যেমন: পরিদর্শন বা খোঁজখবর নিতে জনপ্রতিনিধি, নিরাপত্তার জন্য আইশৃংখলা বাহিনী, মিডিয়া কাভারেজের জন্য গণমাধ্যম কর্মীরা তাদের দায়িত্বপালন ও পেশাদারিত্বের খাতিরে উপস্থিত থাকতে পারেন, তবে অবশ্যই উপভোগের মানসে নয়। কিন্তু স্বেচ্ছায় বিধর্মীদের এসব শিরকি অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ-কোন মুসলিমের জন্য কখনো বৈধ হতে পারে না।

ওমর আল ফারুক (রা:) বলতেন:
“তোমরা কাফির-মুশরিকদের উপাসনালয়ে তাদের উৎসবের দিনগুলোতে প্রবেশ করো না। কারণ সেই সময় তাদের ওপর আল্লাহর গযব নাযিল হতে থাকে।”
[মুসান্নাফ আব্দুররাজ্জাক]

মুসলিম কেউ পূজা উদ্বোধন করার মানে হলো-এক আল্লাহ ব্যতীত কল্পিত দেব দেবীর উপাসনাকে সমর্থন দেয়া। যেটা ইসলামের মৌলিক প্রাণসত্ত্বাকে নষ্ট করে। ইসলামের প্রাণসত্ত্বাকে বিসর্জন দিয়ে সুশীল সাজতে গেলে যে আপনার ইমানটাই প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে যায়, সেটা কি আমরা ভুলে যাচ্ছি? আসলে, সুশীলতারও একটা মাত্রা বা সীমারেখা আছে। কতটুকু করতে হয়, কতটুকু বলতে হয় এটাও জানতে হয়।

অমুসলিম কাউকে এনে যেমনি আমাদের কোন মসজিদ উদ্বোধন শোভনীয় নয়, ঠিক তেমনি, মুসলিম হয়ে অমুসলিমদের শিরকি প্রোগ্রাম উদ্বোধন করতে যাওয়াটাও অত্যন্ত দৃষ্টিকটু এবং সরাসরি নিজ ইমান বা বিশ্বাসের সাথে সাংঘর্ষিক।

আমরা কি আত্মপরিচয় সংকটে দোদুল্যমান? ইসলামের স্বতন্ত্রতা বা স্বকীয়তা ধারণ করতে হীনমন্যতায় ভুগছি? ইসলাম নিয়ে গৌরববোধ করতে লজ্জা পাচ্ছি? যদি এমন হয়, তবে আফসোস আমাদের জন্য! রাব্বে কারিম যে ইসলামকে আমাদের দ্বীন বানিয়ে সন্তুষ্ট হলেন, সে ইসলামে আমরা সন্তুষ্ট হতে পারলামনা।

ওমর আল ফারুক (রা:) বলতেন:
“আমরা এমন একটি জাতিগোস্ঠী, যাদেরকে আল্লাহ তায়ালা ইসলাম দিয়ে সম্মানিত করেছেন। এখন এই ইসলামকে বাদ দিয়ে যদি অন্য কোথাও আমরা সম্মান তালাশ করি, তবে তিনি আমাদের অপমানিত করে ছাড়বেন।”
[মুসতাদরাক হাকিম]

আল্লাহ তায়ালা ইরশাদ করেন:
“হে ঈমানদারগণ! মুমিনদের বাদ দিয়ে কাফেরদেরকে নিজেদের বন্ধু হিসেবে গ্রহণ করো না। তোমরা কি নিজেদের বিরুদ্ধে আল্লাহর কাছে নিজেদের পাপের সুস্পষ্ট প্রমান তুলে দিতে চাও?”
[সূরা নিসা: ১৪৪]

“তোমার কাছে এবং পূর্ববর্তী সমস্ত নবির কাছে এই ওহি পাঠানো হয়েছে যে, যদি তুমি শির্‌কে লিপ্ত হও তাহলে তোমার সকল আমল ব্যর্থ ও নিষ্ফল হয়ে যাবে এবং অবশ্যই তুমি ক্ষতিগ্রস্তদের অন্তর্ভুক্ত হবে।”
[সূরা ঝুমার: ৬৫]

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top