একজন ডাক্তারের লড়াইয়ের গল্প “হ্যালো ডাক্তার আপা”

করোনাকালে সম্মুখসারির যোদ্ধা হয়ে রাতদিন লড়াই করেছেন বিশ্বের সব চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা। তাদের সেই লড়াই ও সংগ্রাম নিয়ে লেখক রাহিতুল ইসলামের নতুন উপন্যাস “হ্যালো ডাক্তার আপা”। উপন্যাসটি লেখক করোনাকালে সম্মুখসারিতে লড়াই করা চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের উৎসর্গ করেছেন। বইটি এরই মধ্যে বাজারে এনেছে বিশ্বসাহিত্য ভবন।

অমর একুশে গ্রন্থমেলায় ১৫ নম্বর প্যাভিলিয়নে পাওয়া যাচ্ছে “হ্যালো ডাক্তার আপা”। এছাড়াও রকমারি (https://www.rokomari.com/book/211861/hello-dactar-apa ) ও প্রথমা (https://www.prothoma.com/product/10396/
) থেকে অনলাইনেও কেনা যাবে ২০০ টাকা মূল্যের এই বইটি। জনপ্রিয় লেখক রাহিতুল ইসলামের এই বইয়ে প্রচ্ছদ এঁকেছেন সব্যসাচী মিস্ত্রী।

“হ্যালো ডাক্তার আপা” উপন্যাসে একজন ডাক্তার আর তার পরিবার যে করোনার সময়ে কী কঠিন লড়াইয়ের মধ্য দিয়ে গেছে, সেটাই উঠে এসেছে। গল্পটি এক মধ্যবিত্ত পরিবারের। সচ্ছলতা তেমন না থাকলেও এই পরিবারে আনন্দ আছে। কিন্তু হঠাৎ একদিন মারা যান পরিবারের কর্তা। স্বর্নার বাবা। বাবার ইচ্ছে ছিল স্বর্না ডাক্তার হবে। মানুষের পাশে দাঁড়াবে। স্বামীকে হারানোর পর সেই স্বপ্ন পূরণে স্বর্নার মা আরও উঠে পড়ে লাগেন। দুই মেয়েকে নিয়ে একলা এক মায়ের জীবন সংগ্রামের গল্প পাওয়া যায় এই উপন্যাসে। অনেক চড়াই-উৎরাইয়ের পর স্বর্না ডাক্তার হয়।

৩৯ তম বিসিএসে পাস করে যোগ দেয় একটা সরকারি হাসপাতালে। কিন্তু এর কিছুদিন পরই সারা বিশ্বে আঘাত হানে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। আর সবাই ঘরে নিজেকে বন্দী করে ফেললেও একজন চিকিৎসকের সে উপায় নেই। শুরু হয় স্বর্নার পরিবারের এক নতুন যুদ্ধ।

প্রতিদিন যেহেতু হাসপাতালে যেতে হয়, নিজেকে পরিবার থেকে দূরে সরিয়ে নেয় স্বর্না। এরই মধ্যে একদিন কোভিডে আক্রান্ত হয় সে। স্বর্না তবু মনোবল হারায় না। অসুস্থতা নিয়ে ঘরে বসে টেলিমেডিসিন সেবা দিতে থাকে সে। দিন নেই রাত নেই, কখনো মোবাইলে, কখনো ল্যাপটপে… রোগীদের সঙ্গে কথা বলতে দেখা যায় স্বর্নাকে। ধীরে ধীরে তাঁর শরীর দুর্বল হতে থাকে, তবু সে হাল ছাড়ে না।

তরুণ লেখক রাহিতুল ইসলামের লেখায় বরাবরই উঠে আসে মানবিকতার, সংগ্রামের গল্প। এর আগে তিনি ই-কমার্স উদ্যোক্তা, ফ্রিল্যান্সারদের নিয়ে উপন্যাস লিখে প্রশংসা কুড়িয়েছেন। তার লেখা উপন্যাসের ওপর ভিত্তি করে তৈরি হয়েছে শর্টফিল্মও। রাহিতুলের এবারের উপন্যাসে দেখা যাবে মহামারিকালে চিকিৎসকদের জীবনের লড়াই, সংগ্রাম, কষ্ট, ও অর্জনের গল্প। মানবিকতার গল্প। এর আগেও এই লেখকের উপন্যাসগুলো সাড়া ফেলেছিল পাঠকমহলে। তার লেখা বইগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- আউটসোর্সিং ও ভালোবাসার গল্প, চরের মাস্টার কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার, কেমন আছে ফ্রিল্যান্সার নাদিয়া, ফ্রিল্যান্সার সুমনের দিনরাত, ভালোবাসার হাটবাজার, ভালোবাসি. ধারণা করা হচ্ছে, সাম্প্রতিক পরিস্থিতিকে কেন্দ্র করে লেখা এবারের “হ্যালো ডাক্তার আপা” বইটিও সবার মনে জায়গা করে নেবে।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top