আমার জবানবন্দি

আমি আক্রান্ত হয়েছি। একজন বীর মু্ক্তিযোদ্ধার সন্তান আক্রান্ত হয়েছে। একজন চিকিৎসক আক্রান্ত হয়েছে; কার দ্বারা; একজন জনপ্রতিনিধি দ্বারা। তিনি অতীতে কী ছিলেন, এমনকি রাষ্ট্র চালিয়েছেন, প্রতিমন্ত্রী ছিলেন, ফলে তিনি অনেক ক্ষমতা অর্জন করেছেন। এমন একজন সাংসদ বা জনপ্রতিনিধির দ্বারা আমি আক্রান্ত হয়েছি।

এর কারণ হচ্ছে আমি আমার হাসপাতালে অফিস কক্ষে অসংখ্য অসহায় আর্তনাদকারী রোগীদের সেবা দিচ্ছিলাম। তাদেরকে নিয়ে যখন আমি দৈনন্দিন রুটিন ওয়ার্ক করছিলাম তাদের নিয়ে তখন তিনি আসলেন। সেখানে তাকে বসতে দেয়ার মত জায়গাও ছিল না, তিনি আসলেন তাঁর গুণ্ডাপাণ্ডার মত চেহারার একদল লোক নিয়ে; হয়তো বা তার দেহরক্ষী তারা এবং আরও তার এলাকার লোকজনের একটা মিছিল নিয়ে তিনি আসলেন এবং আমি হতবাক হয়ে গেলাম যে, এই লোকগুলি কারা; কে? আমি এই জনপ্রতিনিধিকে কখনও দেখিনি। বাস্তবে তার চেহারাও আমি জানি না, আমি তখন তার দেহরক্ষীদের বললাম যে আপনারা এখানে কেন এসেছেন? কি করছেন? আপনারা প্লিজ দয়া করে হাসপাতালের ডিরেক্টর স্যার এর রুমে বসেন, ওই সময় ডিরেক্টর স্যার হাসপাতালে অবস্থান করছিলেন।

আমার অপরাধ যে, আমি সেই জনপ্রতিনিধিকে কেন চিনলাম না! কেন তাকে কুর্নিশ করলাম না! তার পদপ্রান্তে ডাক্তার হিসেবে নিজের Dignity নিজের অস্তিত্ব এবং নিজের কর্তব্যবোধকে তার ইচ্ছার কাছে সমপর্ণ করলাম না।

এই হল আমার অপরাধ, সুতরাং আমি এই অপরাধের জন্য বিন্দুমাত্র চিন্তিত নই, বা আমি এই অপরাধ করেই যাব। আমি এই অপরাধ করতেই থাকব। আর্ত মানবতা আমার কাছে প্রথম। আমি উদাহরণ দিতে পারি যে, ব্রিটেন এক হাসপাতালে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ক্যামেরন ঢুকে পড়েছিলেন বিনা অনুমতিতে, ডাক্তার তাকে তৎক্ষনাত বের করে দিয়ে বলেছিলেন যে, “আমি রোগীদের সেবা দিচ্ছি, আপনি বিনা অনুমতিতে এখানে ঢুকেছেন কেন? আপনি বেরিয়ে যান”, তাতে উনি অনুতপ্ত হয়ে বেরিয়ে গিয়েছিলেন এবং তাতে ব্রিটিশ পার্লামেন্ট আন্দোলিত হয়নি। ব্রিটিশ জনগণ মোটেই তাতে- যেরকম এখানে কুৎসিত মন্তব্য করা হচ্ছে- সে রকম কোনো মন্তব্য করেননি। বরঞ্চ সেটাই ব্রিটিশ সভ্য সমাজের জন্য একটি স্বাভাবিক ঘটনা। বরঞ্চ সেটাই একজন কর্তব্যরত ডাক্তারের কাছে ব্রিটিশ সভ্য সমাজের দাবী। এটাই rules. This is rules of business.

সুতরাং এ আমার অপরাধ, আমি কেন তার পদলেহন করলাম না। আমি কোন দিন এই রকম কোন জনপ্রতিনিধি চাই না এবং তাদের পদলেহনের কোন আশাও আমার দ্বারা পূর্ণ হবে না। সুতরাং এই অপরাধ চলতেই থাকবে।

যেভাবে ঘটনার শুরু

রোজ মঙ্গলবার, ২৮শে জুলাই, দুপুর আনুমানিক ৩.৩০ ঘটিকায়
স্থান: ইমার্জেন্সি কক্ষ, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হসপিটাল।

আমি আমার ইমার্জেন্সি রুমে ১০-১৫ জন অসহায় আর্তনাদকারী রোগীর সেবা প্রদান করছিলাম। এমতাবস্থায় হঠাৎ করেই ৮-১০ জন ব্যক্তি ইমার্জেন্সি রুমে প্রবেশ করেন এবং ইমার্জেন্সি মেডিকেল অফিসারদের চেয়ারে বসে পড়েন। উনারা রুমে ঢুকে নিজেদের কোন পরিচয়ই প্রকাশ করেননি। ক্রমাগত অসুস্থ রোগীদের ভীড় বাড়তেই থাকে, ফলে রোগীদের সেবাদান ব্যহত হওয়ায় আমি তার একজন দেহরক্ষীকে বললাম “ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক স্যার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ মিজানুর রহমান হাসপাতালে আছেন। স্যারের রুমে বসার সুব্যবস্থা আছে। উনি একজন সম্মানীয় ব্যক্তি, উনাকে স্যারের রুমে নিয়ে বসান।”

এতেই, উনার দেহরক্ষীরা প্রচণ্ড ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। জনাবা জনপ্রতিনিধির সাথে আমার সরাসরি কোনো বাক্যালাপ হয়নি। তৎক্ষণাৎ প্রচণ্ড ক্ষিপ্ত হয়ে আমার উপর তেড়ে আসেন ও আমার নাম জিজ্ঞেস করেন। আমাকে অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ করা শুরু করেন। শুধু তাই নয় তারা আমাকে তুলে নেয়ার হুমকি দেয়। ঠিক এমনি এক সময় ডিরেক্টর স্যার ঘটনাস্থলে আসেন এবং আমার কাছ থেকে পুরো ঘটনা সম্পর্কে অবহিত হন, এরপর তিনি ওই জনপ্রতিনিধির সাথে কথা বলেন।

হলুদ সাংবাদিকতা অসভ্য ছোবল

এরপর থেকেই শুরু হয়ে যায় আমার প্রতি লাগামহীন হলুদ সাংবাদিকতার ছোবল। যমুনা গ্রুপ তার অধীনস্থ যুগান্তর পত্রিকায় ও যমুনা টিভির মাধ্যমে আমার ব্যক্তিগত ও পেশাগত জীবন তছনছ করার চেষ্টা করে চলেছে। তারা আমার ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে পুরোপু ভূয়া, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন কাব্য রচনা করে আমার চরিত্র হনন ও পেশাগত জীবনের সাফল্যকে ম্লান করার কুপ্রচেষ্টায় তাদের নিজস্ব সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ করছেন।

আমি বিশ্বাস করি বাংলাদেশে এখনও সৎ সাংবাদিকতা এবং বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনকারী প্রতিষ্ঠান আছে। আমার সাংবাদিক ভাইদের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি- আপনারা সত্য উদঘাটন করুন, প্রচার করুন। এতে করে আমার যদি কোনো ভুল হয়ে থাকে সেজন্য ক্ষমা চাইতেও আমার কোনো দ্বিধা নেই।

ঘটনাস্থলে উপস্থি রোগীদের অভিযোগ

ঢাকা মেডিকেলের মতো গুরুত্বপূর্ণ ও সরকারী হাসপাতালের ইমার্জেন্সি মেডিকেল অফিসারের রুমে উনাদের উপস্থিতিতে একদিকে যেমন চিকিৎসকের সেবাদান ব্যাহত হচ্ছিল, অন্যদিকে রোগী ও তার স্বজনেরা অভিযোগ করছিল। “ডাক্তার আপা ওদের দিকে নজর দিয়েন না ওরা ক্ষমতা ও টাকার জোরে এমনি করে থাকে। আপনি আমাদের দিকে নজর দেন, আমাদের সমস্যা সমাধান করেন”।

কি আমার অপরাধ

আমি তাদেরকে বলেছি আমি আপনাদের কী সহযোগিতা করতে পারি? কিন্তু তারা আমার প্রশ্নের জবাব তো দেয়ইনি উল্টো আমার প্রতি অশ্রাব্য গালি গালাজ শুরু করেছিল। সরকারি হাসপাতালে ইমার্জেন্সি কক্ষে একজন কর্তব্যরত ডাক্তার হিসেবে আমি যা বলেছি, যা করেছি এর চেয়ে আর কি করতে পারতাম?

ডা. নুনযীরুল মুহসেনীন মীম: ইমার্জেন্সি মেডিকেল অফিসার, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top