ফ্যাশনের কারণে হতে পারে রোগ

সাজগোজ করতে কে না ভালোবাসে? কে না সুন্দর হতে চায়? চলতি হাল ফ্যাশনের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে চায় সকলেই। তাই তো জামাকাপড়ের সঙ্গে মানানসই জুতা, ব্যাগ, অলঙ্কার- সব কিছুই টিপটপ রাখতে চায় সবাই।

কিন্তু জানেন কি, ফ্যাশনের কারণেই শরীরে দেখা দিতে পারে নানা ধরনের সমস্যা! সামান্য ব্যথা ছাড়াও বাসা বাঁধতে পারে গুরুতর রোগ। অর্থোপেডিক সিমন মোয়েসের মতে, মহিলাদের হাই হিল স্টিলেটো বা কিছু কায়দার অ্যাথলেটিক শু-ও পায়ের বারোটা বাজিয়ে দিতে পারে। প্রভাব ফেলতে পারে দৃষ্টি শক্তিতেও। ব্যথার সঙ্গে হতে পারে নার্ভের নানা সমস্যা।

অনেক সময় ফ্যাশনের সঙ্গে তাল মেলাতে গিয়ে বড় ও ভারী ব্যাগ ব্যবহার করেন নারীরা। ভারের কারণে ঘাড়ে সার্ভাইকাল পেইনের শিকার হন অনেকে। পেশিতে টান লাগে, হাত নাড়তেও অসুবিধা হয়। তাই বেছে বেছে হালকা ওজনের ব্যাগ ব্যবহার করুন। সব ব্যাগ যে ভারী হবে তেমন নয়। কিছু ব্যাগের ওজন কম হতেই পারে, যেমন – ফোমের তৈরি ব্যাগ বা যে সব ব্যাগে মেটাল বসানো থাকে না। কিন্তু বড় চামড়ার ব্যাগ ব্যবহার না করাই ভালো। এই সব ব্যাগের ওজন বেশি হয় বলে ঘাড়ে প্রচণ্ড ব্যথা হয়।

এখন অধিকাংশ নারীই ফ্যাশন সচেতন হতে গিয়ে গলায় বড় বড় ভারী নেকলেস পরেন। গলা জুড়ে থাকা এই নেকলেস দেখতে যতই সুন্দর হোক না কেন, এর ভারে মাসল্ পেইন হতে পারে। হতে পারে স্পন্ডিলোসিসও। তাই সতর্ক থাকুন। ভারী নেকলেস এড়িয়ে চলুন। আর একান্ত ইচ্ছা হলে কিছু সময়ের জন্য পরুন, সবসময় নয়।

গরমের সময় পা ঘামে বলে রংবেরঙের ফ্লিপফ্লপ বা হাওয়াইকে বেছে নিয়েছেন অনেকে। কিন্তু এই আরামদায়ক পাদুকাই ডেকে আনতে পারে পায়ের রোগ। হতে পারে “প্ল্যান্টার ফ্যাসিটিস” রোগ, যার ফলে গোড়ালিতে মারাত্মক ব্যথা হয়। তাই তো রাস্তায় না পরে, হাওয়াইকে বাড়িতে পরার পরামর্শ দেন ডাক্তাররা।

ফ্যাশনের সঙ্গে পাল্লা দেওয়ার আগে নিজের শরীরের কথা একটু ভাবুন। কেন না, এর কারণেই আপনার শরীরটি নানা অসুখের আঁতুড় ঘর হয়ে উঠতে পারে।

 

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top