দাঁতের মাড়ির যত্ন

ঝকঝকে দাঁতে সুন্দর হাসি কেবল আপনার ব্যক্তিত্বকেই আকর্ষণীয় করে না, এটা আপনার সুস্বাস্থ্যেরও পরিচায়ক। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্যি যে অনেকেই দাঁত সুস্থ রাখার বিষয়ে সচেতন থাকেন না। ঠেকায় পড়ে দাঁতের চিকিৎসকের কাছে না যাওয়া পর্যন্ত যেন তারা বিষয়টির গুরুত্বই বোঝেন না। একটু সচেতন হলে এবং কিছু বিষয় নিয়মিত চর্চার মধ্য দিয়ে অভ্যাসে পরিণত করতে পারলে সারা জীবন সুস্থ-সবল দাঁতের সুন্দর হাসি হাসতে পারবেন আপনি। আজকাল আমাদের দাঁতের যে সবচেয়ে সাধারণ সমস্যা যা কম বেশি সবার দেখা যায় তা হচ্ছে মাড়ি দিয়ে রক্ত পড়া। অনেক সময় হাসতে অথবা কথা বলতে গিয়ে দাঁতে রক্ত দেখা যায় আবার শক্ত কিছু খেতে গিয়েও মাড়ি দিয়ে রক্ত পড়তে দেখা যায়। যাই হোক আজকে আমরা  মাড়ি দিয়ে রক্ত পড়ার কারণ এবং ঘরে বসে কীভাবে এর সমাধান করা যায় তা নিয়ে আলোচনা করবো। প্রথমে কারণগুলো জেনে নিই- প্রথমেই বলি মাড়ি দিয়ে রক্ত পড়া শরীরের অন্যান্য অসুখের সাথে রিলেটেড হতে পারে।  যদিও এটি প্রাণঘাতী অসুখ নয় তবে সময় মতো দাঁতের যত্ন অথবা চিকিৎসা না করলে এটি ইনফেকশন এবং কিছু কিছু সময় ক্যান্সারের কারণ হতে পারে। কারণ-

  • জোরে জোরে ব্রাশ করা।
  • ভিটামিনের অভাব।
  • অন্য কোন ওষুধের সাইড ইফেক্ট।
  • মুখে ঘা।
  • গর্ভধারণের সময় হরমোনের পরিবর্তন।
  • অন্যান্য মেডিকেল সমস্যা যেমন ডায়াবেটিকস, লিউকিমিয়া, স্কারভি ইত্যাদি।

এবার চলুন জেনে নিই কীভাবে ঘরে বসে এর চিকিৎসা করা যায়-

  • লবঙ্গঃ লবঙ্গ মাড়ির প্রদাহ কমিয়ে রক্ত পড়া বন্ধ করতে সহায়তা করে। অল্প পরিমাণ লবঙ্গের তেল অথবা পাউডার নিয়ে মাড়িতে হালকা ভাবে ম্যাসাজ করুন অথবা ১-২ টি লবঙ্গ চিবিয়ে খেয়ে নিন। এতে হালকা জ্বালা ভাব অনুভব হলেও এটি আপনার মাড়ির প্রদাহ কমিয়ে ফেলবে।
  • অ্যালোভেরাঃ অল্প পরিমাণ অ্যালোভেরা পাল্প নিয়ে মাড়িতে ম্যাসাজ করুন এতে রক্ত পড়া কমে যাবে।
  • তাজা শাকসবজি এবং ফলঃ সুস্থ মাড়ি পেতে প্রচুর পরিমাণ তাজা শাকসবজি এবং ফল খেতে হবে কারণ এতে আপনার শরীরের ভিটামিনের অভাব দূর হবে। কাঁচা সবজি এবং ফল চিবিয়ে খেলে মাড়ির রক্ত চলাচল বেড়ে যায় ফলে এটি রক্তক্ষরণ কমিয়ে দেয়।
  • লবণ দিয়ে কুলকুচিঃ সবচেয়ে সহজ উপায় হল লবন পানি দিয়ে কুলকুচি করা। এক গ্লাস কুসুম গরম পানিতে এক চিমটি লবণ নিয়ে দিনে ৩ বার কুলকুচি করুন।
  • ভিটামিন সিঃ ভিটামিন  সি এর অভাবে মুখে ঘা হয় তাই প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি যুক্ত খাবার খেতে হবে যেমনঃ কমলা, লেবু, আমলকী, ইত্যাদি।
  • দুধঃ  দুধে প্রচুর পরিমাণ ক্যালসিয়াম থাকে যা আপনার মাড়িকে শক্ত করে থাকে। তবে এতে চর্বিও থাকে। আপনি যখন দুধ পান করেন তখন এর চর্বি আপনার মাড়িতে লেগে থাকতে পারে এবং এটি মাড়ির জন্য মোটেই ভালো না । তাই যখনই দুধ পান করবেন তারপর অবশ্যই ব্রাশ করে নিন।
  • বেকিং সোডাঃ আপনার টুথব্রাশটি বেকিং সোডার পাউডারে একবার মেখে নিন এবং ব্রাশ করুন। আপনি চাইলে পেস্টের সাথে মিশিয়ে নিতে পারেন।
  • মধু ও রসুনঃ মধু খুব শক্তিশালী অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল টনিক। একটি রসুনের কোয়া নিয়ে এর অর্ধেক পরিমাণ নিন এবং এক টেবিল চামচ মধু মিক্স করে মাড়িতে ম্যাসাজ করুন।

আশা করছি টিপস গুলো আপনাদের কাজে লাগবে।

লিখেছেনঃ পাপিয়া সুলতানা

ছবিঃ এইচডিলেটেস্টওয়ালপেপার্স.কম

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top