শব্দ এবং কফিতে শ্রবণের ক্ষতি!

যারা রক মিউজিক শুনতে শুনতে কফি পান করতে ভালবাসেন তাদের জন্য একটি সতর্কবার্তা হচ্ছে– সাম্প্রতিক এক গবেষণায় জানানো হয়েছে যে, শ্রবণের উপর ক্যাফেইন এর মারাত্মক প্রভাব রয়েছে। এ সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিই চলুন।

কানাডার ম্যাকগিল বিশ্ববিদ্যালয়ের হেলথ সেন্টারের করা গবেষণায় জানানো হয়েছে যে, উচ্চ মাত্রার শব্দের সংস্পর্শে থেকে নিয়মিত কফি পান করলে শ্রবণের সমস্যা দেখা দিতে পারে, এমনকি স্থায়ীভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে শ্রবণেন্দ্রিয়। আমেরিকান মেডিক্যাল এ্যাসোসিয়েশনের জার্নালে প্রকাশিত হয় এই গবেষণা প্রতিবেদনটি।

ম্যাকগিল বিশ্ববিদ্যালয়ের অটোল্যারিংঙ্গোলজিস্ট ডা. ফয়সাল জাওয়ায়ি বলেন, “তীব্র শব্দ অস্থায়ীভাবে শ্রবণক্ষমতা হ্রাস করতে পারে। একে অডিটরি টেম্পোরারি থ্রেশহোল্ড শিফট বলে। এই সমস্যাটি প্রথম ৭২ ঘন্টার মধ্যেই পরিবর্তনযোগ্য। কিন্তু ক্যাফেইন এই প্রক্রিয়াটিতে বাঁধা প্রদান করে এবং প্রক্রিয়াটিকে আরো কঠিন করে তোলে এমনকি ক্ষতি সাড়িয়ে তোলা অসম্ভব হয়ে যায়”।

গবেষকেরা গিনিপিগের উপর এই গবেষণাটি পরিচালনা করেন। তবে তারা মানুষের উপরেও এই গবেষণাটি করবেন বলে জানিয়েছেন। তারা গিনিপিগদের দুটি দলে ভাগ করে নেন। একটি দলকে তীব্র শব্দের পরিবেশে রাখেন কফি দেয়া ছাড়া। অপর দলটিকে তীব্র শব্দের পাশাপাশি কফিও পান করতে দেন। উভয় দলকেই ১১০ ডেসিবেল মাত্রার শব্দ শোনানো হয় যা সাধারণত লাইভ কনসার্টে হয়ে থাকে।

প্রতিদিন ১ ঘন্টা গোলমালের মত তীব্র শব্দের মাঝে রাখা হয় সেই প্রাণীদের যা অনেকটা রক কনসার্টের অনুরূপ। গবেষকদলের মতে, ৮ দিন পরে শ্রবণ শক্তি হারানোর তাৎপর্যপূর্ণ পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায় দুটি দলের মাঝে। প্রায় ১৫ দিন যাবত তাদের পর্যবেক্ষণ করা হয়। ৮দিন পরে ক্যাফেইন মুক্ত দলটি তাদের শ্রবণ শক্তি পুনরায় ফিরে পায় এবং অন্য দলটি যাদের ক্যাফেইন দেয়া হয়েছিলো তাদের শ্রবণশক্তির অধঃপতন লক্ষ্য করা যায়।

২০১৫ সালে ইউরোপিয়ান ফুড সেফটি অথোরিটি ক্যাফেইন গ্রহণের উপর পরামর্শ প্রকাশ করে, সব ধরণের উৎস থেকে দৈনিক ৪০০ মিলিগ্রাম এবং নির্দিষ্ট কোন উৎস থেকে একক মাত্রায় ২০০ মিলিগ্রাম প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য নিরাপদ হতে পারে।

যদিও ম্যাকগিলের গবেষকদের মতে, দৈনিক ২৫ মিলিগ্রাম ক্যাফেইন গ্রহণের পাশাপাশি উচ্চমাত্রার শব্দের সংস্পর্শে থাকলে তা শ্রবণের পুনরুদ্ধারে নাতিবাচক প্রভাব ফেলে।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top