অটুট রাখতে সুখের সম্পর্ক

পারস্পারিক যোগ্যতা আর ভালোলাগা থেকে জন্ম নেয় ভালোবাসা। ভালোবাসার শুভ পরিণতি ঘটে বিয়ের মাধ্যমে। বিয়ে সামাজিক রীতি হলেও এই সম্পর্ককে অটুট করতে উদ্যোগী হতে হয় দুজনকেই। সম্পর্কের এই যত্ন-আত্তিতে থাকা চলে না কোনো কার্পণ্য। আসুন জেনে নেয়া যাক, বিবাহিত জীবনকে আরও সুন্দর এবং সুখী হতে যে বিষয়গুলো নিয়মিত চর্চা করা প্রয়োজন।

সততা

সম্পর্কের ক্ষেত্রে মূল স্তম্ভ হচ্ছে সততা। প্রতিটি সম্পর্কের বিষয়ে সততা দেখানো উচিৎ। একজনকে লুকিয়ে অপরজনের যেকোনো কাজই মনে কষ্ট এনে দিতে পারে। দাম্পত্য জীবনে ভালোখারাপ প্রতিটি বিষয়ে একে অপরের কাছে পরিষ্কার থাকাটা তাই খুবই জরুরি।

ক্ষমা

বিয়ের সম্পর্কটি মোটেও ঠুনকো নয়। কোনো ভুল হলে প্রথমেই সঙ্গীকে শাস্তি না দিয়ে তার ভুল শুধরানোর ব্যবস্থা করতে হবে। সম্পর্ক ভেঙ্গে দেওয়ার চিন্তা না করে তাকে বার বার বোঝাতে হবে। নিজেদের সম্পর্ক নিয়ে নতুন করে ভাবতে হবে। আপনার ক্ষমা করার প্রবণতা সঙ্গীকে আরও বেশি স্নেহকাতর করে তুলবে। আর স্নেহকাতরতা প্রেমের দারুন রসায়ণ সৃষ্টি করে।

বিশ্বাস

এমন কিছু কখনো করা যাবে না যাতে করে দুজের মধ্যে বিশ্বাস নষ্ট হয়ে যায়। শুধুমাত্র অবিশ্বাসই একটি সম্পর্ক ধ্বংস করে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট। তাই দুজনের বোঝাপড়াটা হতে হবে একদম ঠিক ঠিক। বিশ্বাস আর আস্থা দুজনের প্রতি এক অকৃত্রিম টানের সৃষ্টি করে।

সময় কাটানো

একসঙ্গে সময় কাটাতে আগ্রহী হতে হবে দুজনকেই। দুজনের একান্ত সময় কাটানো যেন আনন্দময় হয় সেজন্য নতুন নতুন পরিকল্পনা করতে হবে।

ধৈর্য্য

দাম্পত্য জীবনের পুরো সময়টাই হানিমুন মুডে থাকতে পারবো…এটা ভাবলে বড় ধরনের ধাক্কা খেতে হতে পারে। দুঃসময় আসতে পারে, এমন অবস্থায় ভেঙ্গে না পড়ে ধৈর্য্য ধরতে হবে।

ভালোবাসা

সব সম্পর্কের মূলে থাকে ভালোবাসা। সঙ্গীর জন্য ভালোবাসা থাকতে হবে এবং সেই ভালোবাসার প্রকাশও করতে হবে। তার শারীরিক মানসিক চাওয়ার প্রাধান্য দেয়া উচিৎ মনের গভীর থেকে। নিজের সাধ্য অনুযায়ী চেষ্টার প্রকাশ সঙ্গীকে অবশ্যই আবেগে আপ্লুত করবে। সম্পর্ক হবে অটুট।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top