বন্ধু আসো হাতটা ধরি

বন্ধুর সঙ্গে হঠাৎ করেই অভিমান। অভিমানের ঝুলিটা এতোই ভারি যে, বন্ধুকে শুনিয়ে দিয়েছেন বেশ কড়া কিছু কথা। বন্ধুটিও কম যায় না, সেও শুনিয়েছে অপ্রয়োজনীয় কিছু বকুনি। দুজনের মুখ দেখাদেখি আপাতত বন্ধ। কিন্তু মন কি আর মানে? মনের মধ্যে বন্ধুর কথা বার বারই উঠে আসছে। বারবারই বলতে ইচ্ছা করছে- বন্ধু আসো হাতটা ধরি। তবু আপনি চাচ্ছেন, সে আগে কথা বলুক। বন্ধুও গো ধরে বসে আছে আপনার অপেক্ষায়। এভাবে সময় যত যাচ্ছে আপনাদের কষ্টটাও তত বাড়ছে। তাই কষ্টের দৈর্ঘ্য বাড়াতে না চাইলে…

উদার হোন

আপনার বন্ধুর হয়তো দোষটা বেশি। কিন্তু তাতে কি, কষ্ট তো দুজনেরই। তাই মনের ভেতর থেকে সব মেঘ ঝেড়ে ফেলুন। উদার হয়ে ক্ষমা করে দিন তাকে। ভুল যদি আপনার হয় তবে অকপটে ক্ষমা চান। মনে রাখবেন, ক্ষমা চাইলেই কেউ ছোট হয়ে যায় না। বন্ধুর সামনে তো একদম না।

ইগোকে একদমই না

বন্ধুত্বে ইগোর কোনো স্থান নেই। ইগোর কারণে নষ্ট হতে পারে বন্ধুত্বের মতো অকৃত্রিম সম্পর্ক। হারাতে পারেন প্রিয় বন্ধুকে। ঝগড়া যদি মারাত্মক পর্যায়েরও হয় জিদ নিয়ে বসে থাকবেন না। ঝগড়ার কিছু সময় পরেও যদি বন্ধু কথা না বলে, আপনিই বলুন না। সম্পর্কটি দারুন হবে।

ভালোকে মনে করুন বারবার

বন্ধুর ওপর ভীষণ অভিমান হচ্ছে। তার আচরণে নিজেকে একদমই সামলাতে পারছেন না। কিন্তু এভাবে তো চলতে পারে না। মাথা ঠাণ্ডা হলে বন্ধুর পুরনো দিনের কথা ভাবুন। অনেক ভালোলাগা চাপা পড়েছিলো, যা এতোদিন ভাবার দরকার হয়নি। তার অভাবে এখন ভাবুন। দেখবেন, রাগ ও অভিমান অনেকটাই কমে গেছে! এবার বন্ধুর সঙ্গে মিটিয়ে নিন জমে থাকা রাগ।

বন্ধুত্বে সম্মান দিন

ঝগড়ার জের ধরে অন্যদের সামনে বন্ধুকে ছোট করবেন না। এমন কোনো কথা বলবেন না যাতে অন্যরা আপনাদের বন্ধুত্ব নিয়ে কটু কথা বলতে পারে। বন্ধুর প্রতি রাগ, ক্ষোভ বা অভিমান অন্যদের সামনে প্রকাশ করলেও তাকে অপমানকর কোনো কথা বলবেন না। তাতে আপনাদের ভবিষ্যৎ সম্পর্কটি আরও ভালো হবে। আপনার বন্ধু শুনলেও খুশি হবে।

যোগাযোগ রাখুন

ঝগড়া হলে বন্ধুর সঙ্গে যোগাযোগ না থাকলে কাছের মানুষদের মাধ্যমে যোগাযোগ রাখুন। এই মানুষদের কাছেই আপনি বন্ধুটির খবর পাবেন। তারা আপনার সঙ্গে বন্ধুর যোগাযোগের মাধ্যম হতে পারে।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top