নারী সাইক্লিংয়ের নানা দিক

চল্লিশের মাঝামাঝি বয়সী নারীদের সবচেয়ে বেশি হাড় ক্ষয় হয়। এসব সমস্যা সমাধানে ক্যালসিয়ামযুক্ত খাবারের সঙ্গে ব্যায়ামের অভ্যাস গড়ে তোলা উচিৎ। তাই আগে থেকেই করতে পারেন সাইক্লিংয়ের অভ্যাস। উত্তম এই ব্যায়াম হাঁটু, পিঠ, কোমর ও ঘাড়ের ব্যথা থেকে আপনাকে রাখবে মুক্ত। তাই আসুন শিখে নেয়া যাক সাইক্লিংয়ের নানা দিক।

বিভিন্ন গতি

সাইকেল কখনো একই গতিতে চালানো ঠিক নয়। এতে নিজের কাছে বিষয়টি স্বাচ্ছন্দের নাও হতে পারে। তাই একেক সময় একেক গতিতে চালাতে হবে। সাইকেল চালানো শুরুর কিছু সময় পর জোরে চালালে আপনার হৃদস্পন্দন বেড়ে যাবে। আপনার শরীরের ক্যালোরি ক্ষয় হতে শুরু হবে, যা মেদ কমাতে খুবই সাহায্যকারী।

সময় বাড়ান

সাইকেল চালানোর সময় সমতল পথ বেছে নিন। তাছাড়া সাইকেল চালানোর সময় বাড়িয়ে নিতে পারেন। অনেক সময় ধরে সাইকেল চালালে শুধু ওজন কমবে না, আপনার সহনশীলতাও বাড়বে। সহনশীলতা আপনার মস্তিষ্কের জন্য খুবই উপকারী।

সাইকেল কিনুন

যাদের বয়স ১০ বছর বা তার নিচে, তাদের জন্য ১০ ইঞ্চি ফ্রেম, ১০ থেকে ১৬ বছর বয়সীদের সাধারণত ১৬ থেকে ২০ ইঞ্চি এবং প্রাপ্তবয়স্কদের এর চেয়ে বড় ফ্রেমের সাইকেলের প্রয়োজন হয়। চালানোর সুবিধার্থে মাউন্টেন বাইকগুলোই তরুণদের মধ্যে বেশি জনপ্রিয়। ভ্যালোস, টেলাস, ডায়মন্ডব্যাক, কোর, র‌্যালি ইত্যাদি দেশি ব্র্যান্ডের সাইকেলগুলো পাবেন ১২ থেকে ৫০ হাজার টাকার মধ্যে। বিদেশি ব্র্যান্ডের মধ্যে লায়ন, লায়ন অপটিমাস, গোল্ডেন হুইল প্রভৃতি কোম্পানি সাইকেলগুলোর দাম ২০ থেকে ৬০ হাজার টাকার মধ্যে। এখন সাধ এবং সাধ্যের মধ্যে কিনে নিন আপনার পছন্দের সাইকেলটি।

দেহভঙ্গি

নানা দেহভঙ্গিতে আপনি সাইকেল চালাতে পারেন। কিন্তু খেয়াল রাখবেন যেন মেরুদণ্ড সোজা থাকে। কারণ বাঁকিয়ে থাকলে একটির সঙ্গে অন্য হাড়ের ক্রমাগত সংঘর্ষে ক্ষয়ে যেতে পারে। সাইকেল চালানোর জন্য এমন পোশাক নির্বাচন করুন যাতে আপনাকে অশালীন না দেখায়। পোশাক যেন আরামদায়ক হয় সেদিকেও খেয়াল রাখুন। এতে নারী হিসেবে নির্বিঘ্নে সাইকেল চালাতে পারবেন।

পানি পান

পানি আমাদের শরীরে জ্বালানি হিসেবে কাজ করে। সাইকেল চালানোর সময় সে জ্বালানি ঘাম হয়ে বের হয়ে যায়। তাই পর্যাপ্ত পরিমান পানি পান করা জরুরি। সাইকেল চালানোর সময় বোতলে পানি নিতে ভুলবেন না।

উন্নতমানের ফ্রক, দামি সাসপেনশন, শিফটার, গিয়ার কমবেশি হওয়া, ভালো মানের টায়ার, গতি ও ওজনের ভিন্নতার কারণে সাইকেলের দাম ওঠানামা করে থাকে। ধানমন্ডি তেজগাঁওসহ বিভিন্ন স্থানে বংশালের বেশ কিছু দোকানের শাখা রয়েছে। সাইকেলের সঙ্গে এসব দোকানে কিনতে পাওয়া যাবে সাইকেল সাজানোর নানা সামগ্রীও। ফ্যাশনেবল হেলমেট, বাহারি হ্যান্ড গ্লাভস, স্ট্যান্ড, বেল, ফ্রন্ট লাইট, বটলকেস, মিটার, সুবিধামতো সিট কভার ইত্যাদি প্রয়োজনীয় কিংবা শখের অনুষঙ্গ পাওয়া যাবে বংশালের অধিকাংশ সাইকেলের দোকানে। সাইক্লিংয়ে একঘেঁয়েমি কাটাতে কোনো বন্ধু নির্বাচন করে নিতে পারেন। ব্যস্ত ঢাকা শহরে জ্যামে বসে না থেকে যাতায়াতেও ব্যবহার করতে পারেন সখের সাইকেলটি। আপনার সুস্থতায় পরিবেশবান্ধব সাইকেলটি হোক উপকারী বন্ধু।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top