আপনার চেহারায় উপযুক্ত রোদচশমা

ফ্যাশন সচেতন তরুনদের চাই সবকিছুতে একটু বাড়তি যত্ন। তাদের যত্নের কাছে চোখের প্রাধান্যটাও থাকে অটুট। তাই পছন্দের রোদচশমাটি বেছে নিতে ভুলে যান না একদমই। কারণ রোদের ক্ষতিকর প্রভাব, ধুলাবালি, ছোট পোকামাকড়ের হাত থেকে চোখকে বাঁচাতে এর কোনো বিকল্প নেই। বিশেষ করে যাদের বেশির ভাগ সময় বাইরে থাকতে হয়, বেশি ভ্রমণকারী এবং বাইক চালকদের জন্য এটি খুবই উপকারী। উপকারী রোদচশমাকে প্রবীণরাও এড়াতে পারেন না। তাদের মাঝেও রোদচশমা ব্যবহারের প্রবণতা দেখা যায়। তবে তার আগে জেনে নেয়া দরকার আপনার মুখের আকৃতি, চেহারার ধরণ, গয়ের রং এবং চুলের কাটিং এ কোন ধরণের চশমা উপযোগী।

ডিম্বাকৃতি চেহারা যাদের, তাদের মুখে মোটামুটি সব ধরনের রোদচশমা মানায়। তবে চারকোনা ফ্রেমের রোদচশমা এমন চেহারায় বেশি মানিয়ে যায়। ক্লাসিক ডিম্বাকৃতির কিছু রোদচশমা রয়েছে। চতুর্ভূজাকৃতির মুখগুলোতে এমন রোদচশমা ভালো দেখায়। লম্বামুখের চেহারার সঙ্গে গোলাকৃতির রোদচশমা ভালো যায়। এছাড়া, চারকোনা ফ্রেমের রোদচশমাও তাদের ভালো মানাবে। তবে লক্ষ্য রাখতে হবে যেন রোদচশমার ফ্রেম খুব ছোট না হয়, যা চেহারায় বেখাপ্পা দেখায়। শ্যামলা গায়ের রঙের সাথে স্বচ্ছ ফ্রেম সবচেয়ে ভালো মানায়। যাদের ত্বক খানিকটা বেশি কালো তারা সিলভারের ফ্রেম পছন্দ করবেন।

রেশমি ঘন কালো চুলের সৌন্দর্য বাড়িয়ে দেবে রিম ছাড়া হালকা শেডের রোদচশমাগুলো। খুব কোঁকড়া চুলে ছোট ফ্রেমের রোদচশমা ভালো মানাতে পারে যদি তা চেহারার মাপের সাথে খাপ খায়। যারা চুল ছোট রাখেন, তাদের রোদচশমা বাছাই করার সময় চুলের চেয়ে চেহারার আকৃতির উপরেই অধিক দৃষ্টি দেয়া উচিত। এক্ষেত্রে কড়া রঙের রোদচশমা আপনার চেহারায় এনে দেবে সুদৃঢ় ব্যক্তিত্বের ছাপ।

চশমার শো-রুম গুলোতে চমৎকার সব ডিজাইনের ফ্রেম পাওয়া যায়। ইদানীং অবশ্য একটু পুরনো আদলের ডিজাইনগুলো নতুনভাবে ফিরে এসেছে। এগুলোর মধ্যে ব্যান্ড এবং ননব্যান্ডের ছোট বড় নানা রঙের রোদচশমা পাবেন।

আপনার পছন্দ অনুযায়ী এবং বাজেটের মধ্যে ঢাকার বসুন্ধরা শপিংমল, ইস্টার্ন প্লাজা, নিউমার্কেটসহ শহরের বড় বড় মার্কেট ও দোকানগুলোয় আনায়াসে রোদচশমা পেয়ে যাবেন। আর কম দামের রোদচশমা পেতে পারেন ফুটপাতে। তবে সস্তা রোদচশমাগুলো আপনার চোখের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। তাই রোদচশমা কেনার সময় একবার হলেও চোখের কথা চিন্তা করবেন।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top