একলা ভ্রমণ করতে চাইলে নারীদের জন্য সবচাইতে নিরাপদ ৭ টি দারুণ শহর

অনেকদিন ধরে এক জায়গায় থাকতে থাকতে মন আর মস্তিষ্ক দুটোই অকেজো হয়ে পড়ে। আর তাই সবারই উচিত কিছুদিন পরপর নতুন কোথাও থেকে বেরিয়ে আসা। নতুন দেশ না হোক, অন্তত নতুন কোন জায়গা তো হতেই পারে। অনেকেই আছেন যারা দলবেঁধে ঘুরতে পছন্দ করেন। অনেকে একলা। ভ্রমণে নানারকম সমস্যা তো হবেই। তবে নারীদের ক্ষেত্রে হয়তো সেটা আরো কিছুটা বেশি দেখা যায়। আর তাই প্রতি নারীই খোঁজেন এমন একটি স্থান যেখানে গেলে নিরাপত্তা আর আনন্দ দুটোই পাওয়া যাবে সহজে। আপনি যদি হন এই কাতারের একজন, তাহলে আপনার জন্যেই আজ রইলো এমন কিছু শহরের নাম যেখানে গেলে শান্তিতে ও নিরাপত্তার সাথে ভ্রমণ সারতে পারেন আপনি। এখানে নিরাপত্তার মানদন্ড নির্ধারিত হয়েছে নারী অধিকার, পারিশ্রমিক ও নারীর প্রতি হওয়া নির্যাতন ও অপরাধের পরিসংখ্যানের ভিত্তিতে।

১. কোপেনহেগেন, ডেনমার্ক

ডেনমার্কের রাজধানী কোপেনহেগেনে গেলে আপনি দেখতে পাবেন এখানকার অসাধারণ সব স্থাপত্যগুলো। আর কেনাকাটা যদি করতে পছন্দ করেন সেই সাথে, তাহলে তো আর কথাই নেই! দুই মিলিয়ন মানুষের শহর কোপেনহেগেনে এলে দেবী জেফজানের ঝর্ণাটি দেখতে অবশ্যই ভুলবেন না। কারণ তাহলেই আপনি বুঝতে পারেন ডেনমার্কের গড়ে ওঠা আর এর ইতিহাসে ধর্মের ভূমিকা একদম পুরোপুরিভাবে।

২. অটোয়া, কানাডা

অন্টোরিয়োতে অবস্থিত কানাডার রাজধানী অটোয়াও হতে পারে আপনার কাঙ্ক্ষিত গন্তব্য! এখানে এলে আপনি পাবেন একই সাথে অনেক সংস্কৃতির ছোঁয়া। রাস্তায় হাঁটবার সময় ফ্রেঞ্চ আর ইংরেজির দারুণ ছোটাছুটির পাশাপাশি এখানে আপনি পাবেন হাতে বানানো অনেক কাপড় আর গয়নার সারি। তবে যেখানেই ঘোরা হোক না কেন, এখানকার বিখ্যাত বাই ওয়ার্ড মার্কেট থেকে একবার ঘুরে না আসলে আপনার ভ্রমণটাই বৃথা হতে বাধ্য। বিখ্যাত এই মার্কেটে প্রতি সপ্তাহে ৫০ হাজারেরও বেশি মানুষের ভীড় লেগে থাকে। আর তাই দেরি না করে চট করে ঘুরে আসুন কানাডায়।

৩. অকল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড

১,৪০০,০০০ মানুষের বাসস্থল, নিউজিল্যান্ডের সবচাইতে বড় এই শহরের আর সবটা অন্য সব শহরের মতন হলেও একটা বড় ধরনের বিশেষত্ব রয়েছে এর। আর সেটি হল এর ভেতরে থাকা হাজার হাজার ইয়ট। এত বেশি ইয়ট রয়েছে এই শহরের উপকূলে যে একে অনেকে নৌকার শহর বলেও ডেকে থাকে। তবে কেবল এতটুকুই নয়, এখানে এলে আরো পাবেন আপনি চমত্কার সব রিসোর্ট, পানির কাছে থাকার সুযোগ এবং অবশ্যই নৌকা ভ্রমণের সুযোগ!

৪. হেলসিনকি, ফিনল্যান্ড

ফিনল্যান্ডের সবচাইতে বড় আর জনবহুল শহর হিসেবে খ্যাত হেলসিনকিকে এমনিতে খুব একটা দেখবার মতন শহর মনে না হলেও একটু ভালো করে খেয়াল করলেই বুঝবেন আপনি যে ঠিক কী কারণে বিখ্যাত এটি। আর কারণটি হচ্ছে এর অসাধারণ স্থাপত্য! শহরের প্রতিটি স্থাপনার সাথেই লেগে আছে এই ছোঁয়া। আর সেজন্যেই ইন্টারন্যাশনাল কাউন্সিল অব সোসাইটিজ অব ইন্ডাস্ট্রিয়াল ডিজাইনের কাছ থেকে ২০১২ সালে ওয়ার্ল্ড ডিজাইন ক্যাপিটাল হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে শহরটি।

৫. হিলো, হাওয়াই

আপনি যদি একলা নিরাপদে কোথাও ভ্রমণ করতে চান তবে হিলোর চাইতে ভালো স্থান আর হতেই পারেনা। হাওয়াই এর মানুষের বসবাসস্থল হিসেবে সবচাইতে বড় এই দ্বীপ হিলোতে গেলে আপনি পাবেন অসাধারণ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের খোঁজ। প্রায় ৪০০ ফুট উপর থেকে ঝরে পড়া এর ঝর্ণাগুলো দেখলে মন অনেকটাই হালকা হয়ে যাবে আপনার। সেই সাথেমাউনা লোয়া ম্যাকাডেমিয়া নাট কর্পোরেশন তো আছেই একানে। আর তাই বেড়ানোর সাথে সাথে ধুমসে চকোলেটও খেতে পারেন আপনি হিলোতে এলে।

৬. পার্থ, অষ্ট্রেলিয়া

আর কিছুর জন্যে না হোক এখানকার কিংস পার্কের জন্যে হলেও একবার পার্থে আসা উচিত আপনার। আর সেই সাথে এখানকার অসাধারন বীচ তো রয়েছেই। পৃথিবীর যেকোন প্রান্তের যেকোন বীচকে হারিয়ে দেওয়ার সুনাম আছে পার্থের বীচগুলোর!

৭. অসলো, নরওয়ে

নারীদের সমতার কথা যদি কেবল না শুনে দেখতেও চান তাহলে অসলোর চাইতে ভালো কোন স্থানই হয়না আর। কেবল সেটাই নয়, অসলোতে গেলে আপনি উপভোগ করতে পারবেন ভিজেল্যান্ড স্কাল্পচার পার্কের অসাধারন সব স্থাপত্যও। তবে ওখান থেকে ফিরে আসবার আগে নাইট ক্লাবে ঘুরে আসতে ভুলবেননা যেন!

 

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top