যে জিনিসগুলো কখনোই ভাগাভাগি নয়

রূপ সচেতন কর্মব্যস্ত নারীদের ব্যাগে টুকিটাকি সাজের জিনিস থাকা স্বাভাবিক। কারণ কাজের মাঝে থাকার সময় সাজগোজ এলোমেলো হতেই পারে। তাই চট করে যাতে নিজেকে আবার পরিপাটি করে নেয়া যায় তাই এগুলো সঙ্গে রাখা। ব্যাগে সাজের জিনিস থাকার সুবাদে মাঝে মাঝেই নির্দ্বিধায় কাছের বান্ধবী বা অন্য কোনো মেয়েকে সেগুলো ব্যবহার করতেও দিয়ে থাকি। কিন্তু আপনি কি জানেন, মেকআপের কিছু জিনিস অন্য কারো সঙ্গে ভাগাভাগি করা আপনার মারাত্মক ক্ষতি কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে? নিজের ক্ষতি এড়াতে যত ঘনিষ্ঠই হোন না কেন অন্যের সঙ্গে কিছু জিনিস একেবারেই শেয়ার করা ঠিক নয়।

ক্রিমের কৌটা

একই ক্রিমের কৌটা থেকে বিভিন্ন মানুষের হাত বা আঙুলের ছোঁয়াতে ব্যাকটেরিয়া প্রবেশ করতে পারে। এমনকি আপনি নিজেও যদি বারবার বড় কৌটোয় আঙুল ঢুকিয়ে ক্রিম ব্যবহার করেন তা আপনার জন্য ক্ষতিকর। ক্রিম ছোটো কৌটোতে ১ সপ্তাহের জন্য নামিয়ে ব্যবহার করুন, নিরাপদ থাকবেন।

কাজল বা মাশকারা

যে জিনিসগুলো আমাদের দেহের কোনো প্রকার ফ্লুইডের কাছাকাছি যায় সে সব জিনিস অন্য কারো সঙ্গে শেয়ার করা উচিৎ নয়। কাজল বা মাশকারা ধরণের মেকআপের জিনিস অন্য কারো সঙ্গে ভুলেও কখনো শেয়ার করা ঠিক নয়। শেয়ার করার কারণে কনজাংটিভাইটিস চোখের ইনফেকশন ও প্রদাহের সমস্যা তৈরি করতে পারে।

টুইজার ও রেজর

ভ্রুর সঠিক শেপ ধরে রাখার জন্য অনেকেই টুইজার ব্যবহার করে থাকেন। কিন্তু এই টুইজার শেয়ার করাও হতে পারে মারাত্মক ক্ষতিকর। যখন টুইজার দিয়ে ভ্রু তোলা হয় তখন মাইক্রস্কোপিক পরিমাণের হলেও রক্ত বের হয় যা টুইজারে লেগে থাকে। পরে তা থাকতে থাকতে সংক্রমিত হওয়া স্বাভাবিক। এরপর এক জনেরটা অন্যের শরীরে লাগলে অনেক ধরণের রোগাক্রান্ত হতে পারেন। একই জিনিস ঘটে রেজরের বেলায়।

লিপগ্লস

লিপগ্লসের ব্রাশ সবসময়েই একটি ভেজা স্থানে থাকে যা ব্যাকটেরিয়া উৎপাদনের জন্য অনেক বেশি উপযোগী। একই ব্রাশ অনেকে শেয়ারের কারণে নানা ধরণের রোগ ছড়িয়ে পড়ে দেহে।

মেকআপ ব্রাশ

একজনের মেকআপ ব্রাশ আরেকজন ব্যবহারে কারণে একজনের ত্বকের সমস্যা অন্য জনের মধ্যে ছড়িয়ে পড়তে পারে। কারণ খুব স্বাভাবিক ভাবেই মেকআপ ব্রাশ নিয়মিত ধোয়ার ঝামেলায় যান না কেউই। এতে করে ব্যাকটেরিয়া আটকে থাকে।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top