ছেলে-মেয়ের কি শুধুই বন্ধুত্ব হয়?

ইংরেজি সাহিত্যের লেখক ভার্জিনিয়া উলফ বলেছিলেন, ‘কেউ কেউ পুরোহিতের কাছে যায়, কেউ কবিতার কাছে, আমি যাই বন্ধুর কাছে।’ বন্ধু কিংবা বন্ধুত্ব। স্কুলজীবনের শুরুর দিনগুলোতে অনেকেরই নতুন অভিজ্ঞতার নাম বন্ধুত্ব। পরিবারের চেনা জগত্টা যে এক লাফে অনেক দূর চলে গিয়েছিল সে তো বন্ধুদের হাত ধরেই। জীবনের পথে হাঁটতে হাঁটতে যে যেখানেই থাক না কেন, চলার পথে বন্ধুত্ব নামের এই পাথেয়টির তুলনা বোধ হয় আর কিছুর সঙ্গেই চলে না। এ এমনই বিষয় যেন কিছু না থাকলেও বন্ধুত্ব থাকলে চলে। আবার সব থাকলেও বন্ধুত্ব ছাড়া চলে না!
এই বন্ধুত্ব যদি ছেলেমেয়ের মধ্যে হয়? তা কি নিছকই বন্ধুত্ব নাকি ভিন্ন কিছু। এ ক্ষেত্রে কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের একটি উদ্ধৃতি—ছেলে এবং মেয়ে বন্ধু হতে পারে কিন্তু তারা অবশ্যই একে অপরের প্রেমে পড়বে। হয়তো খুবই অল্প সময়ের জন্য অথবা ভুল সময়ে। কিংবা খুবই দেরিতে, আর নাহয় সব সময়ের জন্য। তবে প্রেমে তারা পড়বেই।
বন্ধুত্ব ও প্রেম! এ নিয়ে কয়েকজন তরুণ পেশাজীবী ও শিক্ষার্থী জানিয়েছেন তাঁদের মতামত।

* ছেলেমেয়ের সম্পর্ক বন্ধুত্বেরও হয়, আবার ভালোবাসারও হয়। অবস্থা বুঝে হয় একেক রকম। অনেক ক্ষেত্রে বন্ধুত্বের সম্পর্কগুলোই ভালোবাসার দিকে গড়ায়। তা থেকে শেষ পর্যন্ত পাশাপাশি হেঁটে একটা জীবন পার করে দেওয়া যায়।
তুহিন সাইফুল
মনোবিজ্ঞান বিভাগ, চতুর্থ বর্ষ
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

* একজন ছেলে আর একজন মেয়ে অবশ্যই প্রথমে বন্ধু হয়। ভালো লাগা থেকে ভালোবাসা হতেই পারে। কিন্তু সব ক্ষেত্রে হবে এমনটা না। যেমন একজন মেয়ের যদি একাধিক বন্ধু হয়, তার মানে এটা না সে ওদের সবাইকে ভালোবাসে। একই কথা ছেলের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য। বন্ধুত্ব যদি সীমার মধ্যে থাকে, তবে অবশ্যই সারা জীবন বন্ধু হয়ে থাকা সম্ভব।
শামীমা নাসরিন
শেষ বর্ষ, কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগ, চট্টগ্রাম আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম।

* সম্পর্ক কীভাবে কোন দিকে মোড় নেবে তা একান্তই দুটো মানুষের ইচ্ছার ওপর নির্ভর করে। যদি ভালোবাসা হয়েও যায়, তবে বন্ধুকে ভালোবাসা যায়। বন্ধুত্বেও ভালোবাসা থাকে।
নুরাঈয়ান নিসা
প্রথম বর্ষ, তড়িৎ ও ইলেকট্রনিকস কৌশল, বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা।

* একজন ছেলে ও একজন মেয়ের মধ্যে শুধু ভালোবাসার সম্পর্ক হয়, এটা ভুল। বরং তার চেয়ে একটা ছেলের সঙ্গে একটা মেয়ের খুব ভালো বন্ধুত্ব হতে পারে। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এটা দেখা যায়। সবাই তো আর বন্ধুত্বকে ভালোবাসায় গড়িয়ে নেয় না।
তামান্না ইয়াসমিন
অর্থনীতি বিভাগ, দ্বিতীয় বর্ষ
ইডেন কলেজ, ঢাকা।

 

* বন্ধুর মধ্যে তফাত আছে। অনেক বন্ধু আছে যাদের সঙ্গে দিনে একবারও কথা হয় না। আবার কিছু আছে যাদের নাড়ির খবর প্রতিমুহূর্তে না জানলে ঘুম হারাম হয়ে যায়। এ রকম বন্ধুত্বের ক্ষেত্রে যে যা-ই বলুক, অনেক কিছু সম্ভব। আর প্রেম-ভালোবাসা ব্যাপারটা বড়ই আজব। এটা যে কখন কার মধ্যে আসে, বোঝা বড় দায়।
সাকিব নাহিদ
টেক্সটাইল প্রকৌশলী
তাকওয়া ফেব্রিকস লিমিটেড।

* একটা ছেলে আর মেয়ের মধ্যে খুব ভালো বন্ধুত্ব হতে পারে। আবার অনেক ক্ষেত্রেই এই বন্ধুত্ব ভালোবাসাতে পরিণত হয়। কারণ, ভালোবাসার মানুষে পরিণত হতে হলে আগে ভালো বন্ধু হতে হয়। বন্ধুত্ব থেকেই পরে ভালোবাসা সৃষ্টি হয়। তবে অনেক ক্ষেত্রে শেষ পর্যন্ত ভালো বন্ধু শুধুই বন্ধু হয়ে থাকতে পারে না। যদি দুজনের মনের মিল হয়ে যায়, তাহলে ভালোবাসা হতে পারে। সব ভালোবাসার মানুষই ভালো বন্ধু, কিন্তু সব ভালো বন্ধু ভালোবাসার মানুষ নাও হতে পারে।
লামিয়া রহমান
প্রথম বর্ষ, রংপুর মেডিকেল কলেজ।

* খুব ভালো বন্ধুত্ব থেকে অনেক সময় ভালোবাসার জন্ম নিতে পারে। তবে সাধারণত বন্ধুত্বের সম্পর্ক টিকিয়ে রাখাই উত্তম।
সাজিদ আরাফাত
গবেষক, সময় টেলিভিশন

* চলার পথে দুজন ছেলেমেয়ের মধ্যে অবশ্যই বন্ধুত্বপূর্ণ সম্মানজনক সম্পর্ক থাকা দরকার। এ ধরনের সম্পর্ককে আমি ইতিবাচক মনে করি। হ্যাঁ, অনেক সময় দেখা যায়, তাদের মধ্যে ভালোবাসার সম্পর্ক গড়ে ওঠে। বন্ধুত্বের সম্পর্ক যদি ভালোবাসায় রূপ নিতে থাকে, তাহলে দুজনের সমান সম্মতিতে সম্পর্ক এগোনো যেতে পারে।
নুসরাত উষা
সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিভাগ, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা।

* বন্ধুত্ব কখনো ছেলে বা মেয়ে এটার ওপর নির্ভর করে না। যখন কাউকে বন্ধু ভাবা হয় সে বন্ধুই থেকে যায়। আর তার স্থায়িত্বও উল্লেখ করার মতো।
রাযীন হালিম
তৃতীয় বর্ষ, ব্যবসায় প্রসাশন বিভাগ
নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা।

* একজন ছেলের সঙ্গে যখন আরেকজন মেয়ের ভালো সম্পর্ক তৈরি হয়, তখন তারা একে অপরের নির্ভরশীল হয়ে পড়ে। একে অপরকে ভালোভাবে বুঝতে পারে। কোনো একসময় একজনের বা দুজনেরই মনে হতে পারে, ‘আমাকে আমার মতো শুধু এই বন্ধুটাই বুঝতে পারে, যা আর কেউ পারে না।’ ঠিক তখনই বন্ধুত্বের সম্পর্ক ভিন্ন পথে এগোতে পারে।
মানজারুল ইসলাম
তৃতীয় সেমিস্টার, ব্যবসায় প্রশাসন
সাউথ ইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা।

* বন্ধুত্ব মানে পবিত্র কিছু। সেটা ছেলে-ছেলে হোক বা ছেলে-মেয়ে হোক কিংবা মেয়ে-মেয়ে। ছেলে ও মেয়ের মধ্যে যে কেবল ভালোবাসা হতে পারে তা নয়, তারা ভালো বন্ধুও হতে পারে। পাশাপাশি হাঁটলে, আড্ডা দিলেই মানুষটা ভালোবাসার মানুষ হয় না। আর স্বভাবতই মেয়েরা তাদের কাছের বন্ধুর সঙ্গে সব শেয়ার করতে পছন্দ করে। আর কোনো ক্ষেত্রে যদি সেটা ভালোবাসায় রূপ নেয়, তবে আমার মতে সেটা হবে সুন্দরতম সম্পর্ক। যেখানে একজন আরেকজনকে বোঝা-জানার সব রকম সুযোগ পায়।
ফারজানা ফারিয়া
প্রথম বর্ষ
চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ, চট্টগ্রাম।

* নারী-পুরুষের সম্পর্ককে শুধুই প্রেম নামক বলয়ে আটকানোর উচিত নয়। একজন ভালো বন্ধু জীবনের অনেক বড় অর্জন। আমি মেয়ে বলে আমার বন্ধু শুধু মেয়েরাই হবে এমনটা হতে পারে না। চলার পথে একজন মেয়েবন্ধু যেমন জীবনের অংশ, একজন ছেলেও ঠিক তেমনই। তবে এ সম্পর্কের পরিণতি ক্ষেত্রবিশেষে প্রণয়ে গড়ায়, সব সময় নয়।
ইসমাত জাহান
গ্রাফিক ডিজাইনার, প্রাণ আরএফএল গ্রুপ, ঢাকা।

* একটি ছেলে এবং একটি মেয়ের মধ্যকার বন্ধুত্বের সম্পর্কটি কখনো সারা জীবন বন্ধুত্বের পর্যায়ে থাকে না, ভিন্ন সম্পর্কে যেতে বাধ্য। এ ক্ষেত্রে খুব কমই ভিন্নতা আছে।
সেলিম জাহাঙ্গীর
দ্বিতীয় বর্ষ, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

* ভালোবাসা সব সম্পর্কেই বিদ্যমান। ছেলেমেয়ের সম্পর্ক যদি বন্ধুত্ব দিয়েই শুরু হয়, তবে একটা সময়ে এসে সেটা ভালোবাসায় গড়াতে পারে। সেটি বেশি দিন না চললে আবার আগের বন্ধুত্বের সম্পর্কে ফিরতেই পারে।
জান্নাতুল ফেরদৌস
দ্বিতীয় বর্ষ, জীবপ্রযুক্তি বিভাগ
নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
নোয়াখালী ।

* বন্ধুত্ব তো বন্ধুত্বই। আমি বন্ধুকে বন্ধু ভাবতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। এখানে ছেলে নাকি মেয়ে তা নিয়ে মাথা ঘামাই না। তাই আমি মনে করি, একজন মেয়ে আরেকজন ছেলের ভালো বন্ধু এবং শুধুই বন্ধু হতে পারে। তবে ভালোবাসা বা প্রেম অন্য বিষয়, মনের বিষয়। ব্যাটে-বলে মিলে গেলে ভালোবাসা হয়েও যেতে পারে!
ইফফাত হিমু
তৃতীয় বর্ষ, আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগ
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।

 

.বন্ধুত্বের জন্য কাঁদতে হবে তা কখনো ভাবিনি…
লোকে বলত ছেলেমেয়েদের নাকি ভালো বন্ধুত্ব হয় না। একসময় তা প্রেমে রূপ নেয়। কিন্তু আমি আর তুই তা মিথ্যা প্রমাণিত করেছিলাম। বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে তুই আমার কাছে সৃষ্টিকর্তা প্রদত্ত শ্রেষ্ঠ উপহার ছিলি। প্রতিদিন নিজে খাওয়ার আগে আমার খবর নিতি যে আমি খেয়েছি কি না। ক্যাম্পাসের এমন কোনো জায়গা নেই যেখানে তোর আর আমার স্মৃতিচিহ্ন নেই। বলতে গেলে আমার সবকিছুর কেন্দ্রেই ছিলি তুই। আজ সেই তুই আট মাস ধরে আমার সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করিস না। আমি এমন কী করেছি বন্ধু যার জন্য আমাকে এত বড় শাস্তি দিচ্ছিস তুই? আমাদের স্মৃতিগুলো আজ আমাকে বড় বেশি কাঁদায়। আমার কষ্টগুলো কাউকে বোঝাতে পারি না। তুই শুধু আমার বন্ধু ছিলি না, ছিলি বোন, ছিলি অভিভাবক, ছিলি সুখ-দুঃখের সাথি। আমি আর পারছি না। দয়া করে আমার কাছে ফিরে আয় বন্ধু।
ইতি
তোর পাগল বন্ধু
সন্ধি
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
মতামত সংগ্রহ: এস এম নজিবুল্লাহ চৌধুরী

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top