ভুল করেও এই খাবারগুলো মাইক্রোওয়েভে গরম করবেন না প্লিজ!

ব্যস্ত এই নগর জীবনকে সহজ করে তুলতে ইলেকট্রনিক জিনিসপত্রের জুড়ি নেই। রান্নার কাজটি সহজ করার জন্য যেসকল ইলেকট্রনিক জিনিসপত্র ব্যবহার করা হয় তার মধ্যে মাইক্রোওয়েভ অন্যতম। দ্রুত খাবার গরম করার পাশাপাশি কিছু কিছু মাইক্রোওয়েভে খাবার রান্নার করারও অপশন রয়েছে।

কেক, ডেজার্ট, চিকেন তন্দুরি মাইক্রোওয়েভে সহজেই রান্না করা যায়। কিন্তু কিছু জিনিস আছে যা মাইক্রোওয়েভে দেওয়া একদম ঠিক নয় । কিন্তু নিজের অজান্তে ভুলবশত এই জিনিসগুলো মাইক্রোওয়েভে দিয়ে থাকি আমরা।

দেখে নিন কী কী খাবরে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে মাইক্রোআভেনে।

পাফ পেস্ট্রি- পাফ, পেস্ট্রি বা বাটার দেওয়া কোনও কিছু মাইক্রোআভেনে গরম করবেন না। এতে খাবারের স্বাদ চলে যায়।

পিৎজা- পিৎজা আমরা গরম করে খাই বটে কিন্তু পিৎজা তৈরি হওয়ার পর আবার গরম করলে পিৎজা ব্রেড শক্ত হয়ে যায়। তাই গরম করে নয়, দরকার পড়লে ঠান্ডা পিৎজাই খান।

বার্গার- দরকার হলে টোস্টারে গরম করুন। কিন্তু মাইক্রোআভেন নয়। কারণ পাউরুটি তৈরির সময়তা পোড়ানো হয়। ফের গরম না করাই ভালো।

ডিম দেওয়া কোনও খাবার- ডিম মেশানো নয়, কিন্তু ভেতরে ডিম দেওয়া কোনও খাবার থাকলে তা কিন্তু মাইক্রোআভেনে গরম করবেন না। কারণ মাইক্রোআভেনে ডিম দিলে তা ফেটে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

মাছ- মাছের ঝোল বা মাছের কালিয়া আমরা গরম করি বটে কিন্তু না করলেই ভালো।

দুধের কোনও খাবার- দুধ থেকে তৈরি খাবার মাইক্রোআভেনে গরম না করাই ভালো। এতে খাদ্যগুণ নষ্ট হয়। অনেক সময় খাবারও নষ্ট হয়ে যায়।

নরম খাদ্য- খুব তুলতুলে কেক, টোফু বা এরকম হালকা কোনও খাবার গরম করবেন না একেবারেই।

বেবিফুড- বাচ্চার খাবার মাইক্রোআভেনে গরম করে খাওয়াবো, এমনটা ভুল কখনই করবেন না। এতে বাচ্চার ক্ষতি।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top