সেহরি কাফেলা নামে প্রকাশ্য চাঁদাবাজি

পুরান ঢাকায় মধ্যরাতে কোরাস গাণ গেয়ে রোজাদারদের সেহরি খেতে ঘুম থেকে ডেকে তোলার রেওয়াজ প্রচলিত ছিল। ওই সময় একদল ধর্মপ্রাণ মুসলমান যুবক সেহরির ঘণ্টাখানেক আগে থেকেই বিভিন্ন পাড়ামহল্লার অলিগলিতে ঘুরে বেড়াতো। তারা কোরাস গাণ গেয়ে সেহরি খেতে ঘুম থেকে উঠতে আহ্বান জানাতো। সেসব ধর্মপ্রাণ মুসলমান যুবকদের কোন আর্থিক চাওয়া পাওয়া ছিলো না।

সময় বদলেছে। এখন অবশ্য সবার বাসায় বাসায় অ্যালার্ম ঘড়ি আছে, মোবাইল আছে। সেহরির সময় ঘুম থেকে উঠা কোন সমস্যা না। কিন্তু তারপরেও সেহরি কাফেলার নামে একদল যুবক সেহরির সময় ঘুম ভাঙ্গাতে আসে। বেশ ভালো।

কৌতুহল জাগলো কারা কষ্ট করে এই ঘুম ভাঙ্গানোর কাজ করছে তাদের দেখা করে একটু ধন্যবাদ দেই। দেখলাম তারা এই মহল্লারই ছেলেপেলে। অবাক হলাম এই দেখে যে তাদের কখনোই মসজিদের আশে পাশেও দেখিনি কিন্তু মহল্লার এক কোনায় থাকা একটি রাজনৈতিক দলের অঙ্গ-সংগঠনের ছাপড়া মার্কা কার্যালয়ের সামনে তাদের বেশ আনাগোনা আছে।

আজ বিল্ডিং এর কেয়ারটেকার এসে জানালো যে প্রত্যেক ফ্লাট থেকে কমপক্ষে ৫০০ টাকা করে দিতে হবে ২৭ রমজানের মধ্যে। ব্যাপার কি? কেয়ারটেকার জানালো সেহরিতে যারা ঘুম থেকে উঠায় মানে সেহরি কাফেলা তারা কেয়ারটেকারকে বলে গেছে যে প্রতি ফ্লাট থেকে কমপক্ষে ৫০০ টাকা করে আদায় করতে। এই টাকা দিতেই হবে, মাফ নেই। আমার এক কলিগ জানালো গত বছর তার বিল্ডিং থেকে ফ্লাট প্রতি ৩০০ টাকা করে আদায় করেছে এই সেহরি কাফেলা।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top