বিষণ্ণতার যে লুকোনো লক্ষণগুলো আপনি খেয়ালে নিচ্ছেন না!

বিষণ্ণতার সমস্যা আজকাল অনেকই সাধারণ বিষয় হয়ে উঠেছে। অনেকেই এই বিষণ্ণতার বিষয়টি নিয়ে একেবারেই চিন্তা করেন না, ভাবেন সামান্য মন খারাপের বিষয়টা আপনাআপনিই ঠিক হয়ে যাবে। কিন্তু বিষণ্ণতার সমস্যা এতো সহজে যাওয়ার নয়। বরং অবহেলার কারণে দিনকে দিন বাড়তেই থাকবে। এবং এই বিষণ্ণতার থেকে মানসিক সমস্যায় ভোগার সম্ভাবনা বেড়ে যায় অনেকাংশে। তাই বিষণ্ণতাকে অবহেলা না করে একটু সতর্ক হওয়া উচিত। আপনার মন খারাপ হওয়া মানেই বিষণ্ণতা নয়। বিষণ্ণতার কিছু লক্ষণ রয়েছে যা আমরা অনেকেই জানি না। বরং এই লুকোনো লক্ষণগুলো আমরা হরহামেশাই অবহেলা করে থাকি।

১) অতিরিক্ত দুর্বলতা

আপনি কি অতিরিক্ত দুর্বলতা অনুভব করেন সব সময়? একটুতেই অনেক হাঁপিয়ে উঠা এবং শক্তি না পাওয়া শুধুমাত্র শারীরিক সমস্যার কারণেই হয়ে থাকে এমনটি নয়। শারীরিক সমস্যা বাদেও যদি এই ধরণের লক্ষণ দেখা যায় তাহলে বুঝবেন এটি আপনার বিষণ্ণতার সমস্যা প্রকাশ করছে।

২) রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যাওয়া

বিষণ্ণতার সমস্যাকে আপনি হয়তো গুরুত্ব দিচ্ছেন না, কিন্তু যদি দেখেন আপনার খুব সহজেই ভাইরাস জনিত বা অন্যান্য ছোটোখাটো রোগ হওয়ার প্রবণতা আগের চাইতে অনেক বেশী বেড়ে গিয়েছে তাহলে বুঝে নেবেন আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যাচ্ছে। আর এই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমার অন্যতম প্রধান কারণ হতে পারে আপনার মারাত্মক বিষণ্ণতার সমস্যা।

৩) কাজে উৎসাহ খুঁজে না পাওয়া

কাজ করতে ইচ্ছে না করা এবং কাজ করার আগ্রহ হারিয়ে ফেলার অর্থ এই নয় যে তার মধ্যে নিজের জীবন নিয়ে সচেতনতার অভাব। এই কাজ না করার বিষয়টি এবং উৎসাহ খুঁজে না পাওয়ার ব্যাপারটির সাথে বিষণ্ণতার সমস্যা জড়িয়ে আছে। গবেষণায় দেখা যায়, যারা মাঝারী ধরনের বিষণ্ণতা রোগে ভোগেন তাদের মধ্যে এই লক্ষণ প্রকাশ পায়।

৪) খাবারের রুটিনে পরিবর্তন

আপনি হয়তো মনে করতে পারেন আপনার খাওয়ার বিষয়টি আপনার ইচ্ছা দ্বারা নিয়ন্ত্রিত, কিন্তু গবেষণায় প্রকাশ পায় বিষণ্ণতার সমস্যার সাথে খাদ্যাভ্যাস এবং খাবারের রুটিনের মধ্যে সম্পর্ক রয়েছে। হুট করে অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার প্রবণতা বেড়ে যাওয়া এবং মধ্যরাতে খাওয়ার বিষয়গুলো বিষণ্ণতার লক্ষণ প্রকাশ করে।

সূত্রঃ দ্য টাইমস অফ ইন্ডিয়া

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top