সুখবর দিচ্ছে অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন

পুরো পৃথিবীর চিত্রই বদলে দিয়েছে করোনাভাইরাস। কীভাবে ভাইরাসটি পুরো শরীরে প্রভাব ফেলেছে সে সম্পর্কে আরও জানতে বিজ্ঞানী এবং চিকিৎসা বিশেষজ্ঞরা দিনরাত চেষ্টা করছেন।

এরই মাঝে ব্রিটেনে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে অক্সফোর্ডের বিজ্ঞানীদের তৈরি করা ভ্যাকসিনটির বিভিন্ন ইতিবাচক লক্ষণ দেখা যাচ্ছে। পরীক্ষার মাধ্যমে জানা গেছে ভ্যাকসিনটি স্বেচ্ছাসেবকদের শরীরে ভাইরাস মেরে ফেলার মতো এন্টিবডি তৈরি করছে।

যদিও বিজ্ঞানীদের দলটি এর আগেই বলেছিলো যে সম্ভাব্য এই ভ্যাকসিনটি নিয়ে তারা ‘৮০ শতাংশ’ আত্মবিশ্বাসী। তারা আরো বলছে, সেপ্টেম্বরের মধ্যে আরও একটি সুসংবাদ পাওয়া যাবে, যা এই সপ্তাহে দ্য ল্যানসেটে প্রত্যাশিত।

নতুন এক ফলাফলের মাধ্যমে জানা গেছে যে ভ্যাকসিনটি দেহে অ্যান্টিবডি প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করছে। এটি গুরুতর টি-সেল তৈরি করছে, যা দেহের ভিতরে থাকা ভাইরাসকে মেরে ফেলবে।

প্রায় ৮ হাজার ব্রিটিশ নাগরিক অক্সফোর্ড ভ্যাকসিনের এই বড় পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। আর এটি তৈরি করছে ফার্মাসিউটিকাল ফার্ম আস্ট্রাজেনেকা। তবে, যুক্তরাজ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ হার হ্রাস পাওয়ায় গবেষকরা ব্রাজিলের ৪ হাজার এবং দক্ষিণ আফ্রিকার ২ হাজার জনকেও টিকা দেওয়ার লক্ষ্যে রয়েছেন।

একজন কোভিড-১৯ জ্যাব অন্তত কয়েক বছরের জন্য টেকসই হবেন আশা প্রকাশ করেছে ব্রিটিশ বিজ্ঞানীরা, যার কিনা এই ভ্যাকসিন প্রকল্পের ফ্রন্ট রানার হয়ে কাজ করছেন। ব্রিটিশ বিজ্ঞানীরা মনে করছেন করোনারোধে আবিষ্কার হওয়া একটি জ্যাব কমপক্ষে কয়েক বছর স্থায়ী করা উচিত।

বিশ্বখ্যাত বিশেষজ্ঞ সারা গিলবার্ট ভ্যাকসিন তৈরিতে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। সারা গিলবার্ট সংসদ সদস্যদের বলেছিলেন তিনি আশাবাদী যে ভ্যাকসিন ‘অনাক্রম্যতা একটি ভাল সময়কাল’ প্রদান করবে।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top