করোনা পজিটিভ কি না জানাবে স্মার্টফোন

বিশ্বজুড়ে কোভিড-১৯ আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমাগত উর্ধমুখী। কোভিড-১৯ পরীক্ষায় বর্তমানে স্বীকৃত দু’টি পদ্ধতি হচ্ছে পিসিআর বা ল্যাব নির্ভর পরীক্ষা এবং র‌্যাপিড টেস্ট। বলা হয়ে থাকে, র‌্যাপিড টেস্টের থেকে ল্যাব টেস্ট বেশি নিখুঁত। যদিও পিসিআর পরীক্ষা অনেক বেশি ব্যয় আর সময় সাপেক্ষ ব্যাপার।

তবে নতুন কোভিড-১৯ শনাক্তের জন্য একটি নতুন প্রযুক্তি আসতে চলেছে। যেখানে স্মার্টফোনের সাহায্যে কার্যকর ভাবে সার্স-কোভ-২ ভাইরাসটি শনাক্ত করা হবে। নতুন এই পরীক্ষা পদ্ধতিকে বলা হচ্ছে, সিআরআইএসপিআর।

এই প্রযুক্তির সাহায্যে ভাইরাসের আরএনএ এম্প্লিফাই (বৃদ্ধি) না করেই স্মার্টফোনের ক্যামেরার মাধ্যমে তা শনাক্ত করা সম্ভব হবে। শুধু তাই নয়, তারা জানাচ্ছেন, এই পদ্ধতিতে যেমন কোনও ব্যক্তি করোনা পজিটিভ না নেগেটিভ বলে দেওয়া যাবে, একইভাবে ভাইরাসের প্রভাব শরীরে ঠিক কতখানি, তাও স্পষ্ট করে জানিয়ে দেওয়া সম্ভব।

আমেরিকার গ্ল্যাডস্টোন ইনস্টিটিউটের সিনিয়র ইনভেস্টিগেটর জেনিফার জানান, সিআরআইএসপিআর -বেস্ড ডায়াগনোসিসের সবচেয়ে ভাল বিষয় হল এর মাধ্যমে নির্ভুল তথ্য খুব অল্প সময়েই পাওয়া যায়। যে সমস্ত জায়গায় টেস্টিংয়ের সমস্যা কিংবা সেভাবে টেস্টিং হচ্ছে না, সেখানকার জন্য এই প্রযুক্তিকে দারুণভাবে কাজে লাগানো যাবে।

এবার প্রশ্ন হল এটি কীভাবে কাজ করে। এর সঙ্গে স্মার্টফোনের ক্যামেরারই বা কী সম্পর্ক। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, এক্ষেত্রে সোয়াব টেস্টের নমুনাটি একটি ডিভাইসের উপর রাখতে হয়। যেটি কিনা স্মার্টফোনের সঙ্গে যুক্ত করা থাকবে। নমুনাটি এমনভাবে রাখতে হয় যাতে মোবাইলের ক্যামেরার মাধ্যমে তা দেখা যায়। এখানে ক্যামেরাটি আদতে আতসকাচের কাজ করে। তাতে চোখ রেখেই বলে দেওয়া যায় নমুনাটি করোনা পজিটিভ নাকি নেগেটিভ।

সাধারণত মানুষের নাকের লালা বা নমুনাগুলো প্রসেসিং করার পর করোনাভাইরাস শনাক্তকরণের কিটের মাধ্যমে রাইবো নিউক্লিক অ্যাসিড (আরএনএ) বের করে আনা হয়। এরপর আরএনএ-এ কোষের নমুনা ল্যাবরেটরিতে রাখা আরেকটি এস কো বায়োসেপটিক্যাল প্লাস টু মেশিনের রাখা হয়। সংযুক্ত করা হয় বিভিন্ন রাসায়নিক দ্রব্য। এরপর বায়োসেপটিক্যাল প্লাস টু মেশিনে প্রস্তুত করা নমুনা নিয়ে আসা হয় রিয়েল টাইম পিসিআর মেশিনে। এই মেশিনের সঙ্গে কম্পিউটার সংযুক্ত রয়েছে। কম্পিউটারে করোনাভাইরাস শনাক্তকরণের সফটওয়্যার চালু করা হয়। যদি নমুনা কোষে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি মেলে, তখন কম্পিউটারের পর্দায় ভেসে ওঠে, করোনাভাইরাস পজিটিভ। আর যদি নমুনা কোষে করোনাভাইরাস না পাওয়া যায়, তখন করোনাভাইরাস নেগেটিভ লেখা ভেসে ওঠে।

বর্তমানে শিরভাগ মোবাইল ফোন থেকেই এই টেস্ট করা সম্ভব বলেই জানান গবেষকরা। এমনকী তারা এও দাবি করেছেন, মাত্র ৫ মিনিটেও অনেক সময় ভাইরাস চিহ্নিত করতে পারে এটি। তবে নির্ভুল ফল পেতে সর্বোচ্চ ৩০ মিনিটই সময় নেয়। করোনা টেস্টের ক্ষেত্রে নিঃসন্দেহে এটি বড় আবিষ্কার।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top