সহকর্মীদের উদ্দীপ্ত করতে চিকিৎসকদের নাচ, ভিডিও ভাইরাল

করোনায় আক্রান্ত দেশগুলোর শীর্ষে অবস্থান করছে ভারত। দেশটিতে বৃহস্পতিবার তিন লাখ ১৪ হাজার করোনা রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। এটিই ওই তারিখে বিশ্বে সর্বোচ্চ আক্রান্তের সংখ্যা ছিল।

যখন করোনার তোপে মানুষ দিগ্বিদিক অক্সিজেন সিলিন্ডার, ভেন্টিলেটর, রেমিডেসিভির, হাসপাতালের বিছানা, বা প্লাজমা খুঁজছে তখন কিছু চিকিৎসক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে নাগরিকদের কঠিন সময়কে মোকাবিলা করতে উজ্জ্বীবিত করছেন। এ কাজটি তারা করছেন বিভিন্ন আনন্দ উদ্দীপক ভিডিও প্রকাশের মাধ্যমে।

সম্প্রতি ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিওতে দেখা যায়, সার্জনরা চিকিৎসকদের উজ্জ্বীবিত করতে ‘মুজো নয়া দামান’ গানের সঙ্গে নাচছেন। এই নাচে অংশ নিয়েছেন ডা. আনিকা হোসাইন খান এবং ডা. শশান্ত চন্দন।

চিকিৎসকদের এমন আরও কিছু ভিডিও সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। কিছুক্ষেত্রে স্বাস্থ্যসেবায় নিয়োজিত কর্মীরা হাসপাতালের নিত্যকার কাজ থেকে শ্বাস নিয়ে মুক্তভাবে বাঁচার তাগিদেই এমন ভিডিও আপলোড করেছেন। ডাক্তারদের আনন্দ-উদযাপনের ছোট ছোট সেসব মুহূর্ত সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

আরও যেসব ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সেখানে একটি ভিডিও এমনো রয়েছে যেখানে অন্তত ৬০ জন চিকিৎসককে দেখানো হয়েছে। ফারেল উইলিয়ামের ‘হ্যাপি সং’ নামের একটি গানের সঙ্গে তারা নেচেছেন। ভিডিওটির ক্যাপশনে লেখা হয়েছে আবেগী কিছু কথা।

সেখানে লেখা- আমরা আপনাদের জীবন বাঁচানোর জন্য নিরন্তর কাজ করে যাচ্ছি। নিজেদের মানসিকভাবে চাঙ্গা রাখার দায়িত্ব নিজেদেরকেই যে রাখতে হবে সেটাও মনে করিয়ে দিতে চাই। আমরা বিশ্বাস করি আমাদের জন্য একটি নতুন সকাল অপেক্ষায় আছে।

আরও একটি নাচের  ভিডিওটি টুইটারে ডা. সৈয়দ ফাইজান আহমেদ শেয়ার করেছিলেন। ফাইজান এর আগে পিপিই পড়ে রোগী ভর্তি একটি রুমে নেচেছিলেন। সেটা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপকভাবে ভাইরাল হয়েছিল। আজোও সেই নাচ অনেককে বাঁচার প্রেরণা জোগায়।

ভারতই শুধু সংক্রমণ ও মৃত্যুর ভয়াবহ দৃশ্য দেখছে না উল্লেখ ডব্লিউএইচওর কোভিড-১৯ সংক্রান্ত টেকনিক্যাল দলের প্রধান মারিয়া ভ্যান কেরখোভ বলেন  বলেন, ‘বেশ কয়েকটি দেশে ব্যাপক মাত্রায় সংক্রমণ বেড়েছে। সতর্ক না হলে অন্যান্য দেশও একই পরিস্থিতির মুখে পড়তে পারে। আমরা ভঙ্গুর এক পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে।’

এদিকে ভারতজুড়ে থামছে না আর্তনাদ। মৃত্যু উপত্যকায় পরিণত হওয়া দেশটির হাসপাতালগুলোতে মিলছে না চিকিৎসা সেবা। বাসাবাড়ি ও গাড়িতে স্বেচ্ছাসেবীদের মাধ্যমে চিকিৎসা নিতে গিয়েও রাজ্যে রাজ্যে হাহাকার চরমে। মিলছে না একটু অক্সিজেনও। দেশটিতে একদিনে ফের সোয়া তিন লাখ মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন আরও ২ হাজার ৮১২ জন।

এ অবস্থায় দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে ফোনালাপে কোভিড লড়াইয়ে পাশে থাকার ঘোষণা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। সারাবিশ্ব থেকে যখন সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে তখন মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে চীন।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top