আমাকে না জানিয়েই সে গোপনে এনগেজমেন্ট করে, আর এখন…

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন জানিয়েছেন নিজের সমস্যার কথা।

“আমার লিখাটা একটু কষ্ট করে পড়বেন। এই সমস্যা থেকে বের হতে পারছি না আর আমার নামটা প্রকাশ করবেন না প্লিজ।

আমি গ্রাজুয়েট হয়েছি কিছুদিন আগে আর সে আমার ৩ বছরের সিনিয়র। আমরা একই ইন্সটিটিউটের। সে এখন খুব ভাল একটা পজিশন এ সরকারী জব করছে। খুব সাধারণ মেয়ে আমি, প্রেম ভালবাসা বলতে বিয়ের পরে প্রেমে বিশ্বাসী আমি। কিন্তু কীভাবে যেন ফেসবুকে কথা বলতে বলতে প্রেম হয়ে যায় আমাদের। প্রেম হবার পর আমাদের দেখা হয়নি, কিন্তু দুজন দুজন সম্পর্কে আগে থেকেই জানতাম। ভালই চলছিল দিন। সে আমার পড়াশুনায় ও অনেক হেল্প করেছে।

তার আর আমার দুজনের বাসা থেকেই বিয়ের জন্য চাপ ছিল। আমার ফাইনাল এক্সাম শেষে সে বাসায় আমার কথা জানাবে বলেছিল। আমার এক্সাম শেষ হলো, তার কাজের চাপ বিধায় আমাদের দেখা হবার দিনও পেছালো। বলেছিলো আমার সাথে দেখা হবার পর তার ফ্যামিলিকে জানাবে। এর সাথে আমার বাসায়ও বিয়ের চাপ ছিল। সে বলে, তাকে সরকারীভাবে পোস্টিং হয়েছে বিদেশে এক বছরের জন্য, খুব তাড়াতাড়িই যেতে হবে..আমি বিয়ের কথা বলায় সে বললো যে তার ফ্যামিলি বিয়ে নিয়ে কিছু বলেনি। ও আলাপ করে দেখবে। তখন এই সেই বলে, কাজের চাপ দেখিয়ে আমার সাথে আর কথা বলে না আগের মতো।

কিছুদিন পর কোন একভাবে বোনের কাছে জানতে পারলাম দুই দিন পর তার engagement ! শুনে আমি পাগল প্রায়, তাকে ফোন দিলে সে অস্বীকার করে। পরের দিন ফোন দিয়ে কথা বলে খোঁজ নেয় আমার, এমনকি engagement এর দিনও অনেক কথা বলে,বার বার ফোন দেয়।

সে engaged শুনে আমি কথা বলা বন্ধ করে দেই, ভেঙে পড়ি। এর কিছুদিন পর তার ফ্লাইটের দিনও ফোন দেয়। এর পর প্রায় দেড় মাস পর সে আবার আমার সাথে কথা বলতে চায়, মাফ চায় আমার কাছে। বলে যে সে পারেনি। তার বাবা, মা ফ্যামিলি ফ্রেন্ডের মেয়ের সাথে বিয়ে ঠিক করসে (উল্লেখ্য, মেয়ে এবং আমি সমবয়সি এবং একই সাব্জেক্টে পড়েছি )। সে পারেনি বাবা, মা কে কষ্ট দিতে। কিন্তু তার হবু বউকে সে ভালবাসে না। সে আমাকে ভুলতে পারেনি, আর পারবেও না। সে আমার সাথে যোগাযোগ রাখতে চায়। আমি বলসি তুমি ভালবাসনা তাহলে বিয়ে করতেছ কেন ? এতে সে ফিরে আসবেও না..বাবা, মা কষ্ট পাবে বলে..

এখন সমস্যা ও মাঝে মাঝে আমাকে ফোন করে, এতে আমিও অনেক অনেক কষ্ট পাচ্ছি। আমার বাসায়ও বিয়ের চাপ, আম্মু আব্বু ছেলে দেখছে, আমি নিজেও চাচ্ছিনা যোগাযোগ রাখতে। কিন্তু তার কথা শুনে আমি তাকে সরাতেও পারছি না আবার ধরে রাখতেও পারছি না,আমি কী করবো?'”

পরামর্শ:

আপু, শুনতে আপনার কষ্ট হলেও বলি যে ছেলেটি আপনাকে ভালোবাসে না। ইনফ্যাকট, সে আপনাকে কখনো আসলেই ভালবেসেছে বলে মনে হয় না। সে একই সাথে ধরি মাছ না ছুঁই পানি খেলা খেলছিল, সম্ভবত একাধিক মেয়ের সাথে। কাকে বিয়ে করলে তাঁর জন্য ভালো হবে, সেটা যাচাই করছিল। তারপর যাকে পছন্দ হয়েছে, তাঁকে পাত্রী ঠিক করে ফেলেছে। একটু ভালো করে খোঁজ নিয়ে দেখুন, আমি অনেকটাই নিশ্চিত যে পাত্রীর সাথে তাঁর আগে থেকেই পরিচয় ও ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক আছে। এখন দূরে থাকে, হয়তো একাকীত্ব অনুভব করে, তাই সময় কাটানোর জন্য সঙ্গী চাই। কেবল সে কারণেই আপনার সাথে যোগাযোগ করছে। ভাবছে আপনি তো তাঁর প্রতি দুর্বলই।

যাই হোক, সে এখন আরেকজনের বাগদত্ত। তাই আপনাকে ভালোবাসে কি বাসে না এই ধরণের প্রশ্ন অবান্তর। আপনি যত দ্রুত পারুন এই লোকের সাথে সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করুন। এই লোক নিজে তো ভালো থাকবে, কিন্তু আপনাকে কখনো ভালো থাকতে দেবে না। আপনি নিজেও বিয়ের পর সুখী হতে পারবেন না। তাছাড়া, আপনি কি চান এমন কোন নারীতে পরিণত হতে যে কিনা আরেকজনের হবু বরের সাথে প্রেম করে বা তাঁকে ছিনিয়ে নিতে চায়? যার সাথে বিয়ে ঠিক হয়েছে সেই মেয়েটির তো কোন দোষ নেই…

এই লোকের আবেগী কথায় ভুলবেন না আপু। আমার মনে হচ্ছে সে একটা প্রতারক।

 

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top