পাঠকের প্রশ্ন: আরেকটি ছেলের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ি, বুঝতে পারছি না যে কাকে জীবনসঙ্গী করব…

পাঠকের প্রশ্ন: আমি যখন ক্লাস নাইনে পড়ি তখন আমার একটি ছেলের সঙ্গে ফেসবুকে ফ্রেন্ডশিপ হয়। কিছুদিন যাওয়ার পর সে আমাকে ভালবেসে ফেলে এবং আমাকে প্রোপোজও করে। আমি না বলি। তারপর ওর বোন আমাকে মেসেজ করত আর বলত- তোমার জন্য দাদা খুব কষ্ট পাচ্ছে/ দাদা হাত কেটেছে/ কিছু খেতে চাইছে না। এভাবে কয়েক মাস যাওয়ার পর আমি ওকে বললাম যে- হ্যাঁ, আমিও তোমাকে ভালোবেসে ফেলেছি। আর যেহেতু আমাদের সম্পর্কটা ফেসবুকে তাই আমাদের লং ডিসটেন্স রিলেশনশিপ।

তারপর প্রায় সাত মাস প্রেম করার পর আমরা দেখা করি। খুব ভালো চলে প্রথম একবছর আমাদের সম্পর্ক। ক্লাস টেনে উঠে আমাকে এড়িয়ে চলা শুরু করে। আমি জিজ্ঞাসা করলে আমাকে বলত যে- সামনে মাধ্যমিক, তাই ও পড়তে চায়। আমিও মেনে নিলাম কারণ আমারও সামনে মাধ্যমিক। কিন্তু সমস্যা হলো মাধ্যমিক পরীক্ষা দেওয়ার পর। ও আমাকে সময় দিলো না। ছোট ছোট ব্যাপার নিয়ে দুই থেকে তিনদিন ফোন করা বন্ধ করে দিত। ফোনও রিসিভ করত না। কিন্তু যখন আমার সঙ্গে দেখা করত তখনও একদম অন্যরকম লাগত, মনে হতো যেন সত্যিই আমাকে ভালোবাসে।

ধীরে ধীরে আমাদের সম্পর্কের মধ্যে দূরত্ব বাড়তে থাকে। ঠিক এমন সময় একটি অন্য ছেলে আসে আমার জীবনে। মাধ্যমিক পরীক্ষা দেওয়ার পর ছুটিতে আছি। তখন আমার দিদি আমাকে বলল যে একটি ছেলে নাকি ওকে আমার নম্বরের জন্য পাগল করে দিচ্ছে। আমি জানি না কেন দিদিকে বললাম- তুই ওকে আমার নম্বর দিয়ে দে। আমি ছেলেটিকে পাত্তা দিতাম না, জাস্ট মাঝে মধ্যে রিপ্লাই দিতাম। এইভাবে ধীরে ধীরে আমরা খুব ভালো ফ্রেন্ড হয়ে যাই। আমার প্রেমিক সময় না দেওয়া, আমার সঙ্গে খারাপ আচরণ ইত্যাদি ও সব সময় আমাকে বুঝিয়ে হ্যাপি রাখার চেষ্টা করত। আমি ওকে ভালোবেসে ফেলি। আমি মানতে চাইছিলাম না যে আমি ওকে ভালোবেসে ফেলেছি কারণ আমার প্রেমিক আছে। আমি একদম ওকে সব বলেছি যে আমি ওকেও ভালোবেসে ফেলেছি।

কিন্তু এখন সমস্যাটা হচ্ছে আমার প্রেমিক আমার সঙ্গে ঝগড়া করলেও দুই- চার দিন পর আমার কাছে ফিরে আসে। পরিবর্তন হবার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে কিন্তু একটুও পরিবর্তন হচ্ছে না। আর আমি দ্বিতীয় যে ছেলেটি তার সঙ্গে কথা না বলে একটি দিনও কাটাতে পারছি না। এখন আমার কী করা উচিত? মানে কাকে আমার জীবনের পার্টনার করা ঠিক হবে আমার প্রেমিককে না ঐ অন্য ছেলেকে?

প্রশ্নটি আমাদের ফেসবুক পেজে করেছেন : নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন তরুণী।

পরামর্শ: সত্যি কথা বলবো, কাকে জীবনসঙ্গী করবে সেই সিদ্ধান্ত তোমার কোনমতেই এখন নেয়া উচিত হবে না। কোনভাবেই না। তোমার এখনও বয়সই হয়নি জীবনসঙ্গী বেছে নেয়ার মত। মাত্র শুরু করেছো জীবন, এই মুহূর্তেই বিয়ে-শাদী বা এই ধরণের চিন্তায় নিজেকে আবদ্ধ করে ফেলো না। নিজেই চিন্তা করে দেখো, কিছুদিন আগেও অন্য একটি ছেলেকে তোমার ভালো লাগতো। আজ সময়ের পরিবর্তনে আরেকটি ছেলে তোমাকে সময় দিচ্ছে বলে তাকে ভালো লাগে। কিছুদিন পর যে অন্য কাউকে ভালো লাগবে না, সেটার গ্যারান্টি কী?

কাউকে ভালো লাগা মোটেও দোষের কিছু না। বিশেষ করে তোমাদের এই বয়সে। বরং এটাই ভালো লাগার বয়স। কিন্তু কাউকে ভালো লাগা, তার প্রেমে পড়া এবং তাকে ভালবাসা- তিনটি কিন্তু সম্পূর্ণ ভিন্ন তিনটি জিনিস। সকল ভালো লাগাই প্রেম নয়, সকল প্রেমই ভালোবাসায় পরিণত হয় না। এবং সব ভালোবাসার মানুষকেই কিন্তু বিয়ে করা যায় না। বিয়ে সম্পূর্ণ ভিন্ন একটা ব্যাপার। যাকে বিয়ে করবে, তাকে ভালবাসা তো অবশ্যই জরুরী। কিন্তু সাথে এটাও খুব ভালো করে যাচাই করে দেখা দরকার যে মানুষটি স্বামী বা স্ত্রী হিসাবে কেমন। আসলেই কি বাকি জীবন তার হাত ধরে কাটাতে পারবে? সে কি জীবন চলার পথে ভালো রাখবে তোমাকে?

সবচাইতে জরুরী যে ব্যাপার, একসাথে দুজন মানুষের সাথে সম্পর্ক রাখা যায় না। তোমাকে তাই দুজনের মাঝে যে কোন একজনকে বেছে নিতে হবে। একই সাথে দুজনের সাথে সম্পর্ক রাখলে কারো সাথেই সম্পর্কটা ভালবাসা পর্যন্ত যাবে না, আপু। বরং একটা সময়ে দুজনই তোমাকে ছেড়ে চলে যাবে। আরেকটা জিনিস মনে রাখবে, ভালবাসা কেবল সময় দেয়াই নয়, বরং ধৈর্য ধরারও নাম। আর কার সাথে সম্পর্ক রাখবে? তার সাথেই সম্পর্ক রেখো, যার কাছে তোমাকে দেয়ার মত সম্মান আছে। যার কাছে তোমার কথার মূল্য আছে। এবং যে নিজের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনায় তোমাকে রেখেছে।

শুভকামনা তোমার জন্য।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top