পাঠকের প্রশ্ন : কেন যেন মনে হয় ওর কণ্ঠ আমাকে ডাকছে

পাঠকের প্রশ্ন : আমার বয়স ২৬ বছর। আমি বিবাহিতা। বিয়ের বয়স সাত বছর। আমার সাড়ে চার বছর বয়সী একটি ছেলেও আছে। পাশাপাশি বাড়ি এবং একই স্কুল কলেজে আমি আর আমার স্বামী পড়াশুনা করেছি বলে আগে থেকেই আমাদের জানাশোনা ছিল। কিন্তু বিয়ের পর থেকেই সে ডমিনেট করে, আমার অনেক মতের সাথে তার মতের মিল হয় না। কিন্তু তাকে রেখে দ্বিতীয় কারো কথা ভাবিনি কখনো।

আমার স্কুল লাইফে বেশ কিছু বন্ধুর মাঝে একটা ছেলে ছিল যাকে আমি আমার সব সমস্যার কথা বলে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করতাম। বিয়ের পর গুটি কয়েক বার কথা হয়েছে, আমার স্বামী পছন্দ করতো না বলে আর যোগাযোগ বাড়াই নি।

ইদানীংকালে, আমার কেন যেন মনে ওর কন্ঠ আমাকে ডাকছে, আমার সাথে কথা বলছে সব সময়, আমার প্রতিটি ক্ষেত্রে সে আছে। আমি মনে মনে তার সাথে কথা বলি। মনে হয় যেন এটা বাস্তব। আমি তার আওয়াজ শুনতে পাই। অথচ তার সাথে আমার দেখা বা কথা কোনটাই হয় না।

আমি পেশায় শিক্ষক, প্রচন্ড কাজের মাঝে থাকলেও মনে হয়, সে খুব মজা করছে আর আমি গায়েবি কারো সাথে একই ভাবে কথোপকথন করছি মনে মনে। আমার যে এইসব সমস্যা হচ্ছে, এটা বাইরের কেউ অনুমান ও করতে পারছে না। আমার কী করা উচিত, কীভাবে এই সমস্যা থেকে বেরিয়ে আসবো।

প্রশ্নটি আমাদের ফেসবুক পেজে করেছেন : নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন

পরামর্শ : আপু, আপনি যে সমস্যাটির কথা লিখেছেন সেটা খুব স্বাভাবিক কোন সমস্যা না। সবকিছু বিস্তারিত না  জেনে আপনার এই সমস্যাটি সম্পর্কে একটা সিদ্ধান্তে আসাটা আমার উচিত হবে না একেবারেই। খুব সংক্ষিপ্ত একটি চিঠি লিখেছেন আপনি, এই সমস্যাটি বুঝতে গেলে অনেক কিছুই বিস্তারিত জানতে হবে। যেমন আপনার দাম্পত্যের খুঁটিনাটি, যে ছেলেটির আওয়াজ শুনতে পান তাঁর ব্যাপারে বিস্তারিত, আপনার বর্তমান জীবন সম্পর্কে বিস্তারিত। তাই আপু, আমার প্রথম পরামর্শ হচ্ছে একজন কাউন্সিলারের কাছে যাবেন। তাঁর সাথে কথাবার্তা বলুন, কয়েকটি সেশন নিন। যদি কাউন্সিলার প্রয়োজন বোধ করেন, তাহলে তিনি হয়তো আপনাকে সাইক্রিয়াটিস্টের কাছে যেতে বলবেন। সেক্ষেত্রে সেটাও করবেন। সমস্যাটি কেন হচ্ছে, সেটা খুঁজে বের করা দরকার অবশ্যই। এবং এই সমস্যাটি নিয়ে মোটেও হেলাফেলা করবেন না, অতি অবশ্যই একজন কাউন্সিলারের শরণাপন্ন হোন।

আমি আপাতদৃষ্টিতে আমার তরফ থেকে একটি গ্রহণযোগ্য ব্যাখ্যা দেবার চেষ্টা করছি-

দেখুন আপু, মাঝে মাঝে এমন হতে পারে। আমরা নিজেরাই হয়তো এমন একটা আচরণ করতে শুরু করি, যেটার ব্যাখ্যা নিজেও খুঁজে পাই না। কিন্তু ভালো করে খুঁজলে দেখা যায়, সেই আচরণগুলোর পেছনে আমাদের বিচিত্র কোন মানবিক আবেগ কাজ করছে যা আদতে খুবই স্বাভাবিক। জীবনের কিছু একটা নিয়ে আমরা যখন খুব আশাহত হয়ে পড়ি, বা জীবনের একটা দিক আমাদের খুব স্ট্রেস দেয়… মন  তখন রাস্তা খোঁজে পালিয়ে যাবার। মন খোঁজে এমন একটা পথ, যেটা দিয়ে নিজেকে সে স্ট্রেস ফ্রি করতে পারে, স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলতে পারে। হয়তো আপনার সাথেও এমন কিছু হচ্ছে আপু। আপনার বিয়েটি ঠিক তেমন প্রমানিত হয়নি, যেমনটা আপনি কল্পনা করেছিলেন। আর এটা হওয়াটা খুবই স্বাভাবিক, এতে দোষের কিছুই নাই। বিয়ে জিনিসটা কল্পনায় বা সিনেমায়-গল্পে যেমন সুন্দর, বাস্তবে তেমনটা নয়। বাস্তবের বিয়েতে বহু চড়াই উৎরাই পার হতে হয়। আশাহত হতে হয় আর কষ্ট পেতে হয়। অনেক সাধনা করে তবেই আসে সুখ। আবার নাও কিন্তু আসতে পারে!

আপনার বিবাহিত জীবনটি বা আপনার জীবনের কিছু ব্যাপার আপনাকে ভীষণ স্ট্রেস দিচ্ছে, নিজের জীবনের কিছু জিনিস নিয়ে মারাত্মক অপূর্ণতায় ভুগছেন আপনি, নিঃসঙ্গ বোধ করছে আপনার অবচেতন মন… আর ঠিক এই কারণেই একজন কাল্পনিক চরিত্রের আপনার জীবনে আবির্ভাব। লক্ষ্য করে দেখুন, সেই মানুষটির ইমেজই আপনার মনের মাঝে ফিরে এসেছে, যাকে কিনা আপনি নিজের সমস্ত সমস্যা খুলে বলতেন। এর অর্থ বুঝতে পারছেন? অর্থ হচ্ছে আপনার অবচেতন মন অসংখ্য সমস্যায় আক্রান্ত এবং সেই মন এমন কাউকেই সঙ্গী হিসাবে খোঁজে যে তাঁর সমস্যাগুলো বুঝতে পারে ও সব বুঝেও সঙ্গ দিতে পারে। অতীতে আপনার সেই বন্ধুটি ছিল জীবনের সমস্যার সঙ্গী, এমন একজন যাকে সবকিছু খুলে বলতে পারতেন। নিজের অজান্তেই মনের মাঝে কোথাও নরম একটা স্থান আছে তাঁর জন্য। তাই জীবনের নিঃসঙ্গতার সুযোগে আপনার মন সেই মানুষটির অবয়বই আবার বের করে এনেছে।

এমন হতে পারে, আপু। আর হওয়াটা অস্বাভাবিক কিছু নয়। এই ব্যাপারটি থেকে বের হয়ে আসার উপায় হচ্ছে নিজের নিঃসঙ্গতা দুর করা। বাস্তব জীবনে কিছু কাছের মানুষ খুঁজে নেয়া, যারা আদতেই আপনার আত্মার আত্মীয়। এবং নিজের জীবনের সমস্যাগুলিকে সমাধানের চেষ্টা করা। আপনার জীবনের সমস্যা মিটে গেলে, দাম্পত্যের সমস্যা মিটে গেলে, জীবনসঙ্গীর কাছ থেকে পর্যাপ্ত মানসিক সাপোর্ট পেতে থাকলে আপনার মনের আর কাল্পনিক বন্ধুর প্রয়োজন পড়বে না। তাই সবার আগে নিজের জীবনের সমস্যাগুলো সমধানের দিকে মনযোগ দিতে হবে।

আমি আবারও বলবো আপু, আপনি অতি সত্বর একজন কাউন্সিলারের শরণাপন্ন হোন।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top