ব্যান্ডউইথের দাম কমলেও সুবিধা পাবে না সাধারণ গ্রাহকেরা

ব্যান্ডউইথের দাম কমলেও সুবিধা পাবে না সাধারণ গ্রাহকেরা। এই সুবিধা ভোগ করবেন কেবল বড় বড় সার্ভিস প্রোভাইডাররা। তাই গ্রাহক পর্যায়ে দাম কমানোর বিষয়টি নির্ভর করবে ইন্টারনেট গেটওয়ে ও ইন্টারনেট প্রোভাইডারদের ওপর।

দেশে আজ মঙ্গলবার থেকে ইন্টারনেট গেটওয়েগুলো প্রতি এমবিপিএস ( মেগাবিটস পার সেকেন্ড) ব্যান্ডউইথ পাবে ৬২৫ টাকায়, যার মূল্য ছিল ১ হাজার ৬৮ টাকা।  প্রাথমিকভাবে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারে এই সুবিধা কার্যকর হবে।

বিবিসি বাংলা জানায়, এই দাম প্রযোজ্য হবে কেবল ১০ জিবিপিএস (গিগাবিটস পার সেকেন্ড) ব্যান্ডউইথ স্ল্যাবের ক্ষেত্রে। আর ১০ জিবিপিএস ব্যান্ডইউথ বাংলাদেশে কিনে থাকেন বড় বড় সার্ভিস প্রোভাইডাররা। তাই এর প্রথম সুবিধাটা পাবে আইআইজি অপারেটররা।
এ ব্যাপারে ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডারদের এ্যাসোসিয়েশনের পরিচালক উথান্ট রব্বানি বলেন, ‘ এই দাম কমলেও সাধারণ গ্রাহকেরা কোন সুবিধা পাবেন না। কেননা, ১০ জিবিপিএস ব্যান্ডইউথ বাংলাদেশে কিনে থাকেন বড় বড় সার্ভিস প্রোভাইডাররা।’

তিনি বলেন, ‘সেখান থেকে স্থানীয়ভাবে যারা ইন্টারনেটের কানেকশন দিয়ে থাকেন যাদেরকে ‘ক্যাটাগরি-এ আইএসপি’ বলা হয় তারা কিনে থাকেন।’

বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা সব সময় একটা অভিযোগ করে থাকেন যে পরিমাণ টাকা তারা দেন সেই মানের ইন্টারনেটের গতি পান না।

সেখানে বাধাটা আসলে কোথায়? উথান্ট রব্বানি বলছেন ‘ক্যাটাগরি-এ আইএসপি’ অর্থাৎ যারা পাড়া-মহল্লায় বাসা বাড়িতে বা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ইন্টারনেট সংযোগ দিয়ে থাকেন তাদের সার্ভিসের কারণে ইন্টারনেট গতি হারাচ্ছে।

বিষয়টি ব্যাখ্যা করে তিনি বলেন ‘তারা ১ এমবি ব্যান্ডউইথ ১০ জনের মধ্যে ভাগ করে দিচ্ছে। এটাকে বলা হয় ‘কনটেনশন রেশিও’। এর ফলে ১ এমবিপিএস একই সময়ে দশজন ব্যবহার করছে। যাতে করে ইন্টারনেটের গতি স্বাভাবিক ভাবেই তারা ভাল পাবে না। যদি ‘ক্যাটাগরি-এ আইএসপি’ পুরো ১ এমবি একজনের জন্যই বরাদ্দ করে তাহলে ভাল গতি পাবে গ্রাহকেরা।’

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top