বিয়েতে স্থানীয় সব হেলিকপ্টার ভাড়া করে ফেলেছিলেন বিল গেটস

২০১৯ সালে ২৫তম বিবাহবার্ষিকী উদ্‌যাপন করেন বিল গেটস ও মেলিন্ডা গেটস। সেই সময়ে টুইটারে স্বামী বিল গেটসকে ট্যাগ করে ২৫তম বিবাহবার্ষিকীর শুভেচ্ছা জানিয়েছিলেন মেলিন্ডা। সেই টুইটের জবাবে, বিল গেটস লিখছিলেন, ‘এভাবে আরও ২৫ বছর দুজন একসঙ্গে হাসিমুখে জীবন পার করতে চাই।’ তবে এর দুই বছর না পেরোতেই বিল গেটসের আরও ২৫ বছর একসঙ্গে থাকার পরিকল্পনা বদলে গেল। টুইটারেই আবার বিল গেটস জানিয়ে দিলেন, মেলিন্ডার সঙ্গে ২৭ বছরের বিবাহিতজীবনের ইতি টানার খবর। বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ এই ধনী দম্পতির প্রেম, বিয়ে ও দাম্পত্যজীবনের কিছু উল্লেখযোগ্য ঘটনা জেনে নেওয়া যাক।

কাজের সুবাদেই মেলিন্ডা আর বিল গেটসের পরিচয় হয়। ১৯৮৭ সালে মাইক্রোসফট করপোরেশনে প্রোডাক্ট ম্যানেজার হিসেবে যোগ দেন মেলিন্ডা। তখনই তাঁদের প্রথম দেখা। বিল গেটস তখন মাইক্রোসফটের প্রধান নির্বাহী (সিইও)। কিছুদিন পর মেলিন্ডাকে ডিনারে যাওয়ার প্রস্তাব দেন বিল গেটস। শুরুটা হয়েছিল এভাবেই। এরপর সাত বছর চুটিয়ে প্রেম করেছেন দুজন। এক তথ্যচিত্রে বিল গেটস বলেন, ‘আমরা একে অপরের খুব খেয়াল রাখতাম। তখন আমাদের সামনে দুটি সম্ভাবনা ছিল। হয় আমাদের প্রেমে বিচ্ছেদ হবে, নয়তো আমাদের বিয়ে করতে হবে।’

সাত বছরের প্রেমকে পূর্ণতা দিতে বিয়ের সিদ্ধান্ত নেন এই যুগল। যদিও মেলিন্ডার মা এই সিদ্ধান্ত শুনে বেঁকে বসেছিলেন। এত বড় প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহীকে জীবনসঙ্গী হিসেবে বেছে নেওয়ার সিদ্ধান্ত মেলিন্ডার মায়ের কাছে তখন ঠিক পছন্দ হয়নি। কিন্তু সেই কথায় কান না দিয়ে বিল গেটসের সঙ্গেই আংটি বদলের সিদ্ধান্ত নেন মেলিন্ডা।

১৯৯৪ সালের হাওয়াই দ্বীপের লানাইয়ে বিল-মেলিন্ডার বিয়ের আসর বসেছিল। ম্যানিলে বে হোটেলে জাঁকজমকপূর্ণ এই বিয়ের আয়োজন করা হয়। আলোচিত এই বিয়েতে প্রায় ১ মিলিয়ন ডলার অর্থ খরচ করা হয়েছিল। বিয়ের অনুষ্ঠানে সর্বোচ্চ গোপনীয়তা চেয়েছিলেন বিল গেটস। তাই তিনি পুরো হোটেলটি ভাড়া নিয়েছিলেন। হোটেলের ওপর দিয়ে কোনো হেলিকপ্টার যাতে উড়ে যেতে না পারে, তাই ওই দিন স্থানীয় সব হেলিকপ্টার ভাড়া নিয়ে রেখে দিয়েছিলেন বিল গেটস। বিল-মেলিন্ডার বিয়েতে কোনো গণমাধ্যম যাওয়ার সুযোগ পায়নি। নিমন্ত্রিত অতিথির তালিকাও ছিল সংক্ষিপ্ত। মাইক্রোসফটের সহপ্রতিষ্ঠাতা পল অ্যালেন, বিনিয়োগগুরু ও মার্কিন ধনকুব ওয়ারেন বাফেট, দ্য ওয়াশিংটন পোস্টের সাবেক প্রকাশক ক্যাথেরিন গ্রাহামের মতো গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা এই বিয়েতে আমন্ত্রিত ছিলেন।

বিয়ের দিনে ধারণ করা একটি মজার ভিডিও ঠিক ২৫ বছর পর ২০১৯ সালে এসে নিজের ফেসবুক পেজে পোস্ট করেন মেলিন্ডা। ভিডিওটির মাধ্যমে বিয়ের সুবর্ণজয়ন্তীর বিশেষ এই ক্ষণ মনে করিয়ে দেন তিনি। ভিডিওতে দেখা যায়, বিল গেটস কী যেন এক জটিল হিসাব কষে কেক কাটছেন। আর পাশে দাঁড়ানো মেলিন্ডা হেসেই গড়াগড়ি খাচ্ছেন। কেক কাটার পেছনের ঘটনাটি ভিডিওর ক্যাপশনে লিখে দিয়েছিলেন মেলিন্ডা। ক্যাপশনে মেলিন্ডা লেখেন, ‘আমি তোমাকে বলেছিলাম, এখন কেক কাটার সময় হয়েছে। আর তুমি ভেবেছিলে, তোমাকে সেখানকার সবার জন্য সমান ভাগ করে কেক কাটতে হবে। সবাই যেন এক সাইজের কেক পায় সে জন্য তুমি দ্রুত অঙ্ক কষা শুরু করে দিলে!’

বিয়ের দিন বিল গেটসের মা–বাবা নববিবাহিত দম্পতিকে দুটি পাখির ভাস্কর্য উপহার দেন। পাখির অবয়ব দুটি পাশাপাশি বসে একই দিকে তাকিয়ে আছে। বিয়ের পর থেকেই পাখির ভাস্কর্যটি বিল-মেলিন্ডা দম্পতির বাড়ির সামনেই অবস্থান করছে। ২০১৮ সালে বার্ষিক এক চিঠিতে মেলিন্ডা লিখেছিলেন, ‘আমি সব সময় এটির (ভাস্কর্য) কথা মনে রাখি। প্রকৃতপক্ষে আমরাও (মেলিন্ডা ও বিল গেটস) তো একই অভিমুখে তাকিয়ে আছি।’

তথ্যসূত্র: বিজনেস ইনসাইডার, ফোর্বস ও চিটশিট ডটকম

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top