একলা ভ্রমণ করতে গেলে মেয়েরা মনে রাখবেন এই টিপসগুলো

যুগ যতটাই বদলাক না কেন পৃথিবীর সবখানে নারীর প্রতি বৈষম্য বেশ জায়গা জুড়ে এখনো অব্দি টিকে রয়েছে। কেবল বৈষম্যই নয়, রয়েছে ভয়, নির্যাতন, অপমান, লাঞ্ছনার মতন অসংখ্য আন্ধকারাচ্ছন্ন আর ভয়াল দিক। কিন্তু তাই বলে কি নারীরা নিজেদের মতন করে ভ্রমন করতে পারবে না? অবশ্যই পারবে। কিন্তু একলা কোথাও ভ্রমনের জন্যে যাওয়ার সময় কিছু জিনিস মাথায় রাখা উচিত নারীদের। সত্যি বলতে গেলে, মানুষরূপী পশুদের সাথে লড়ার ক্ষমতা হয়তো সব নারীরই রয়েছে। কিন্তু এরকম কিছু ব্যাপারের জন্যে নিজের ভ্রমনটা মাটি হলে এর মতন দুঃখের ব্যাপার আর কিছুই হবে না। আর তাই জেনে নিন একলা ভ্রমনে যাওয়ার সময় ঠিক যে ব্যাপারগুলো মনে রাখতে হবে।

১. সংস্কৃতিকে শ্রদ্ধা করুন-

প্রতিটি দেশেরই আলাদা সংস্কৃতি রয়েছে। রয়েছে আলাদা সব বৈশিষ্ট্য। কেন যাচ্ছেন আপনি ঐ দেশে? নিশ্চয় নতুন সংস্কৃতিকে কাছ থেকে দেখবার জন্যে। আর তাই নিজের ভ্রমনকে সার্থক করতে এবং সে দেশের সংস্কৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে আগেই জেনে নিন যে কি ধরনের খাবার সেখানে খায় সবাই, কেমন পোশাক পরে, কেমন করে বড়দের সম্মান জানায়, ভাব আদান-প্রদান করে। এতে করে কেবল আপনার ভ্রমনটাই মজা হবে না, সুরক্ষিত থাকবেন আপনিও। এ নিয়ে বাংলাদেশে পড়তে আসা শ্রীলঙ্কান তরুনী কাঞ্চনা আরাচ্চি বলেন- আমি সবসময়ই বাংলাদেশের সংস্কৃতিকে শ্রদ্ধা করি এবং যখনই বাইরে যাই এ দেশের পোশাক পড়ার চেষ্টা করি। আর অনুষ্ঠানের দিনগুলোতে শাড়ি তো অবশ্যই পড়ি!

২. সতর্ক থাকা-

ভ্রমনের সময় নিজের সাথে কেবল সেসব জিনিসই রাখুন যেগুলো আপনার সবচাইতে দরকারি। খুব বেশি টাকা নেওয়া কিংবা অলংকার না পরার চেষ্টা করুন। এমন কিছু না করার চেষ্টা করুন যাতে করে মনে হয় যে আপনি আলাদা কিংবা এখানে নতুন। এমনভাবে ঘোরাফেরা করুন যাতে মনে হয় আপনি এ স্থানে এর আগেও এসেছেন।

৩. ঝামেলায় না জড়ানো-

খুব বেশি আগ্রহ দেখাচ্ছে কেউ এমন মনে হলে নিজে কথা না বলে নিকটস্থ পুলিশের সাহায্য নিন। নিজের তথ্য সবটা কোন আগন্তুককে দেওয়াটা কখনোই নিরাপদ কিছু নয়। বিশেষ করে আপনি একলা এসেছেন, কোথায় থাকছেন, আপনার পরিকল্পনা ইত্যাদি বিনিময় করা থেকে বিরত থাকুন। এতে করে পরবর্তীতে কোন রকম উটকো ঝামেলা থেকে দূরে তাকতে পারেন আপনি।

৪. আংটি পড়ুন-

ব্যাপারটা খুব হাস্যকর হলেও একটি আংটি আপনার সুরক্ষার ও অনেক ঝামেলা থেকে দূরে তাকার সোজা উপায় হতে পারে। তবে সামান্য একটা আংটি খারাপ মানুষদের জন্যে কোন সমস্যাই নয়। সেক্ষেত্রে কেউ জানতে চাইলে বলুন যে আপনি একা নন। আপনার বন্ধুরা পাশেই আছে। আর কে না জানে, একজন দূর্বল হলেও দশজন নয়! ঢাকা বিশ্ববিদ্যালযের ছাত্রী ইসমাত জাহান লিপি এ নিয়ে বলেন- পদ্ধতিটি কেবল উপকারীই নয়, অনেক বেশি উপকারী। তবে মাঝে মাঝে সবার প্রশ্নের উত্তর দিতে বিরক্ত লাগে।

৫. ব্যস্ত রাস্তা-

ভ্রমনের সময় ব্যস্ত রাস্তা দিয়ে চলতে চেষ্টা করুন। এতে করে দুর্ঘটনার পরিমাণ কম হবে। নিজের থাকার জায়গাটিও সুরক্ষিত কিনা ভালো করে যাচাই করে নিন। সবচাইতে ভালো হয় যদি যেখানে ভ্রমনে গিয়েছেন সেখানকার কারো সাথে একটা ভালো সম্পর্ক থাকে আপনার। তাই কোথাও যাওয়ার আগে সেখানে বন্ধু তৈরির চেষ্টা করুন।

৬. কিছু না নেওয়া-

কম পরিচিত কারো কাছ থেকে কিছু না নেওয়া, বিশেষ করে খাদ্যদ্রব্য না নেওয়ার ক্ষেত্রে মনযোগ রাখুন। হয়তো আপনি সোজা মনেই কোন কিছু নিচ্ছেন, কিন্তু পৃথিবীতে বাজে লোকের অভাব নেই। আর তাই অন্যের জিনিস ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।

৭. পিপার স্প্রে সাথে রাখুন-

নিজের বাড়তি সুরক্ষার জন্যে মরিচ পানি বা পিপার স্প্রে, ছোট চাকুর মতন জিনিসগুলো সাথে রাখুন। সবচাইতে ভালো হয় যদি আপনি কারাতে বা এ ধরনের কিছু শিখে থাকেন। দরকারে প্রচন্ড রকম কাজে আসবে এগুলো আপনার।

ফটো ক্রেডিট: www.polkacafe.com

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top