স্ট্রেস মুক্ত থাকার জন্য ঘরদোরের সাজ হবে কেমন?

স্ট্রেস কি? কেন হয়? কিভাবে হয়? এই প্রশ্নের উত্তর এক ভাবে দেয়া যাবেনা।কারণ যে কারণে একজন মানুষ স্ট্রেস অনুভব করে অন্য কোন মানুষের জন্য তা হতে পারে আনন্দদায়ক।স্ট্রেস এর ফলে শারীরিক ও মানসিক পরিবর্তন ও বিভিন্ন মানুষের জন্য বিভিন্ন রকম হয়, যেমন-স্ট্রেস ফিল করলে কেউ বেশি খায় আবার কেউ কম খায়। স্ট্রেস এর আরো কিছু লক্ষণ হল- কারো মাথা ব্যাথা হয়,কারো মাড়িতে ব্যাথা হয়,করো মুখ রক্তিমাভ হয়ে যায়,অনেকের ঘাম বেশি হয়,হাত-পা ঠাণ্ডা হয়ে যায়,প্রায়ই ঠাণ্ডা লাগে,কোষ্ঠ কাঠিন্য বা ডায়রিয়া হয়,বুক জ্বালাপোড়া করে ও বুকে ব্যাথা হয়,পেটে ব্যাথা হয়,সর্দি-কাশি হয়,মনোযোগ দিতে পারে না, সিদ্ধান্ত নিতে না পারা ইত্যাদি। দীর্ঘদিন স্ট্রেস এর মধ্যে দিয়ে গেলে হার্ট অ্যাটাক, স্ট্রোক, স্কিনের সমস্যা,পারকিন্সন্স ডিজিজ সহ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে গিয়ে আরো অনেক রোগের সৃষ্টি করতে পারে।

এতো ভয়ংকর যে স্ট্রেস তার থেকে পরিত্রাণের কি কোন উপায় নেই? হ্যাঁ আছে, জীবনযাপন এর কিছু পরিবর্তনের মাধ্যমে স্ট্রেস মুক্ত থাকা যায়। তবে এর জন্য কোন শর্ট কার্ট পদ্ধতি নেই। প্রতিনিয়ত আপনাকে এর জন্য চেষ্টা করতে হবে এবং সেটা শুরু হতে পারে আপনার বাসা থেকেই।

আজ আসুন যেনে নেই আপনার বাসাটিকে আপনার প্রশান্তির স্থান কিভাবে করে তুলতে পারেন সেই উপায়।

১। মেডিটেশন স্টেশন

স্ট্রেস মুক্ত হওয়ার সবচেয়ে ভালো পদ্ধতি হচ্ছে মেডিটেশন। মেডিটেশন শারীরিক এবং মানসিক উভয় প্রকার স্ট্রেসের জন্যই উপকারী। মেডিটেশন করার জন্য একটি আলাদা জায়গা থাকলে করাটা সহজ হয়।কারণ এমন অনেকেই আছেন যারা শুধুমাত্র পরিবেশের অভাবে মেডিটেশন করেন না। তাই আপনার ঘরেই এমন একটি স্থান নির্বাচন করুন যেখানে শান্তিতে মেডিটেশন করতে পারবেন। ঠিক মত মেডিটেশন করতে পারলে আপনি প্রশান্তি অনুভব করবেন যার ফলে আপনার স্ট্রেস দূর হবে।

২। এক্সারসাইজ

এক্সারসাইজ স্ট্রেস দূর করে সার্বিক স্বাস্থ্যও ভালো রাখে। জিমে যেয়ে ব্যায়াম করাটা অনেকেরই হয়ে উঠেনা। আবার অনেকের পক্ষে বাহিরে যেয়ে ব্যায়াম করাটাও সহজ নয়।তাই ঘরেই যদি ব্যায়াম করার উপযুক্ত স্থান থাকে তাহলে নিয়মিত ব্যায়াম চর্চা করাটা সহজ। আপনার বাসার কোন একটি স্থানকে ব্যায়ামের জন্য উপযুক্ত সরঞ্জাম দিয়ে সাজিয়ে নিন ও নিয়মিত ব্যায়াম করুন এবং স্ট্রেস মুক্ত ও সুস্থ থাকুন।

৩। ঘরের সব জিনিষ গুছিয়ে রাখুন

যদি আপনার ঘর অগোছালো থাকে তাহলে কোন জিনিষ খুঁজে পেতে অনেক সময় লাগবে। এতে সময়ের অপচয় হয় ও স্ট্রেস ও বাড়ে। আপনার বিভিন্ন বিলের কাগজ, অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র, জামা কাপড়, খাবার  নিদ্রিস্ট স্থানে রাখুন। ঘর অগোছালো থাকলে কাজে মনোযোগী হওয়া যায় না।পরিস্কার পরিছন্ন পরিবেশে মন ভালো থাকে এবং শারীরিক ভাবেও সুস্থ থাকা যায় ।বাহিরে থেকে এসে ঘর অগোছালো থাকলে মেজাজ খারাপ হয় ও স্ট্রেস বাড়ে। আপনার বাসাটি সব সময় গুছিয়ে পরিস্কার করে রাখুন। তাহলে জীবনে ভারসাম্য রক্ষা করাটা সহজ হবে।

আপনার পরিচিত বন্ধু বান্ধব, আত্মীয় স্বজন সবার সাথে যোগাযোগ রক্ষা করুন। ফোনে কথা বলুন বা ইমেইল এ খবর রাখুন। বাসায় নিজের জন্য একটি আলাদা ডেস্ক বা চেয়ার রাখুন যেখানে বসে আপনি আপনার অভিজ্ঞতার কিছু লিখে রাখুন বা ভালো লাগার কোন বই পড়ুন বা গান শুনুন। সর্বোপরি আপনার বাসায় প্রাকৃতিক একটি পরিবেশ তৈরি করুন যেখানে আপনি প্রকৃতির শীতল ছোঁয়া অনুভব করতে পারেন ও প্রশান্ত হতে পারেন।

 

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top