আপনিও চাইলে যমজ সন্তানের বাবা – মা হতে পারেন

একসঙ্গে দুই বা তার অধিক সন্তানের জন্ম নতুন খবর নয়। তবে কেন একের অধিক বাচ্চা এক সময়ে গর্ভে আসে তা অনেকের মনে প্রশ্ন জাগে। চিকিৎসা শাস্ত্রের আবিষ্কারে জানা যায়, পুরুষের অসংখ্য শুক্রাণুর ভেতর থেকে একটি ভাগ্যবান শুক্রাণু নারীর ডিম্বাণুকে নিষিক্ত করলে একটি মানবশিশুর জন্ম হয়। কিন্তু মায়ের গর্ভে কখনো সম্পূর্ণ ভিন্ন দুটি ডিম্বাণু নিষিক্ত হয়েও জন্ম নিতে পারে ভিন্ন দুটি শিশু। এক্ষেত্রে শুক্রাণু দুটিও হয় ভিন্ন ভিন্ন। আবার কখনো একটি ডিম্বাণুই নিষিক্ত হওয়ার পর সমান দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে দুটি শিশুর জন্ম হতে পারে। প্রথম ধরনের জমজকে বলে বাইনোভুলার বা ডাইজাইগোটিক এবং পরেরটিকে ইউনিওভুলার বা মনোজাইগোটিক। বাইনোভুলার বা ডাইজাইগোটিক অর্থ হচ্ছে একই সঙ্গে সম্পূর্ণ আলাদা দুটি ডিম্বাণু আলাদা দুটি শুক্রাণু দ্বারা নিষিক্ত হয়ে দুটি আলাদা জাইগোট গঠন। ফলে একই জরায়ুতে বড় হওয়া শিশু দুটির আলাদা আলাদা ফুল বা প্লাসেন্টা থাকে। এদের লিঙ্গ ভিন্ন হতে পারে, আবার আলাদাও হতে পারে। দেখা যায় এরা জমজ হলেও এদের লিঙ্গ, রক্তের গ্রুপ, গড়ন, গায়ের রঙ বা অন্যান্য অনেক বৈশিষ্ট্য এক নয়। তবে দুজন একই রকম হওয়াটাও কিন্তু অসামঞ্জস্যপূর্ণ বা অস্বাভাবিক নয়। এরকম শিশুর দুটিতে জোড়া লেগে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে না। টুইন বাচ্চাদের দুই তৃতীয়াংশই এমন ভাবে জন্ম নেয়। অপরদিকে ইউনিওভুলার বা মনোজাইগোটিক অর্থ হলো একটি মাত্র ডিম্বাণুকে নিষিক্ত করে একটি শুক্রাণু কিন্তু দুটি শিশুর জন্ম হয়।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top