স্ত্রীর পুরুষ বন্ধু, সামলাবেন যেভাবে

কিছুদিন হলো আপনাদের বিয়ে হয়েছে। আত্মীয়স্বজনের পাশাপাশি আপনার বন্ধুরাও নতুন স্ত্রীকে দেখতে চাইছে। আর আপনিও ঘটা করে স্ত্রীকে দেখালেন। এর পর যখন স্ত্রী তাঁর বন্ধুদের সঙ্গে দেখা করাতে চাইলেন, তখন আর বিষয়টি আপনার কাছে ভালো লাগল না। কারণ, আপনি আশা করে বসেছিলেন, হয়তো অনেক মেয়েবন্ধুর সঙ্গে আপনার পরিচয় হবে। কিন্তু ঘটনাটি একেবারেই উল্টো ঘটল। আপনার স্ত্রীর সবচেয়ে প্রিয়, কাছের ও বিশ্বস্ত বন্ধু একজন ছেলে! কেন জানি বিষয়টি আপনি একদমই মেনে নিতে পারছেন না। যার ফলে আপনাদের সম্পর্কে শুরু হয় টানাপড়েন। আপনার মতো এমন অনেকেই আছেন, যাঁরা স্ত্রীর ছেলেবন্ধুকে সহজে মেনে নিতে পারেন না। তবে যদি সুখে সংসার করতে চান, তাহলে এমন পরিস্থিতিতে পড়লে বিষয়টি আপনাকে নিজেরই সামলাতে হবে। এ ক্ষেত্রে ভিজিহাউ ওয়েবসাইটের এই পরামর্শগুলো একবার দেখে নিতে পারেন :

১. স্ত্রীর বন্ধুকে কোনোভাবেই এড়িয়ে যাবেন না; বরং নিজের বন্ধুদের সঙ্গে যেভাবে আড্ডা দেন, তার সঙ্গেও সেভাবে সময় কাটানোর চেষ্টা করুন। এতে আপনার মনের সন্দেহ, দ্বিধা, চিন্তা সবই দূর হবে।

২. স্ত্রীকে তাঁর পুরুষ বন্ধুকে নিয়ে কোনো নেতিবাচক কথা বলবেন না। এতে তাঁর মনে ভয় তৈরি হতে পারে। আপনি রাগ করবেন, এই ভেবে সে সেই বন্ধুর সঙ্গে হয়তো লুকিয়ে কথা বলতে পারে। আপনার জন্য তাঁরা তাঁদের বন্ধুত্বের কারণে নিজেদের অপরাধী মনে করবে এবং বিষয়টির অনেক নেতিবাচক প্রভাব পড়বে আপনাদের দাম্পত্য সম্পর্কে।

৩. আপনি তাঁর স্বামী আর সে তাঁর ভালো বন্ধু। এ দুটো সম্পর্কের মধ্যে অনেক পার্থক্য। বিষয়টা আপনাকে বুঝতে হবে। কখনোই দুটো সম্পর্ককে গুলিয়ে ফেলবেন না। সম্পর্কের এই স্বচ্ছতাই আপনার মনকে শান্ত রাখবে।

৪. কোনোভাবেই নিজের আত্মবিশ্বাস নষ্ট করবেন না। নিজেকে দুর্বল মনে করবেন না। ভাববেন না যে তাঁরা গোপনে গোপনে প্রেম করছে আর আপনি কিছুই করতে পারছেন না। ছেলেমেয়ের মধ্যে বন্ধুত্বের সম্পর্ক থাকতেই পারে। সেটা বিয়ে করলেই যে শেষ হয়ে যাবে, এটা না ভাবাই বুদ্ধিমানের কাজ; বরং আপনি বিষয়টি যত সহজভাবে নেবেন, তাঁদের সম্পর্কটা ততই পবিত্র থাকবে।

৫. তাঁদের সম্পর্ককে সম্মান করুন। দেখবেন, আপনার স্ত্রীরও আপনার প্রতি শ্রদ্ধাবোধ বেড়ে যাবে। কোনো বিষয়ে নেতিবাচক চিন্তার আগে তাঁর ইতিবাচক দিকগুলো একবার ভেবে নিন।

৬. তাঁদের সম্বন্ধে খারাপ চিন্তাগুলো নিজের মধ্যে রাখুন। যদি কোনো বিষয় আপনার সন্দেহ হয়, তাহলে নজর রাখুন। তবে কোনো কিছু প্রমাণ হওয়ার আগেই কিছু বলবেন না। যদি আপনার সন্দেহ সঠিক না হয়, তাহলে অযথাই নিজেদের সম্পর্ক নষ্ট হবে।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top