পিঠে ব্যথা নিয়ে ঘুম ভাংলে যে কাজগুলো করবেন

মিতু সকালে ঘুম ভাঙার পর বিছানা ছেড়ে নামার জন্য উঠতে যেতেই টের পেল যে তার পিঠে ব্যথা করছে। মিতুর মত এমন পিঠে ব্যথা ঘুম থেকে জেগে ওঠার পরে অনেকেরই হয়ে থাকে। সকালে এধরণের ব্যথার কারণে সারাটা দিনই নষ্ট হতে পারে। সকালের এ ধরনের পিঠে ব্যথার সমস্যা থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য আপনার যা করা প্রয়োজন :

১। ঠান্ডা তারপর গরম চাপ

আমেরিকার উপকূলীয় অঞ্চল অরিগন এর পোর্টল্যান্ড এর ৩৬০ ডিগ্রী স্পোর্টস মেডিসিন এন্ড স্পাইন থেরাপি এর ফিজিক্যাল থেরাপিস্ট শেলি কফম্যান এর মতে, পিঠে ব্যথার ক্ষেত্রে আইস প্যাক ব্যবহার করলে ব্যথাকে অসাড় হতে সাহায্য করবে এবং ইনফ্লামেশন কমাবে। যদি আপনার সামান্য শক্ত হয়ে যাওয়ার মত অনুভূতি হয় তাহলে ঠান্ডার পরিবর্তে হালকা গরম চাপ প্রয়োগ করতে পারেন – কাপড় গরম করে দিতে পারেন পিঠে। ব্যথার মাংসপেশীতে তাপ প্রয়োগ করলে পেশী শিথিল হতে এবং ব্যথার স্থানে রক্ত চলাচলে সাহায্য করে। পিঠের ব্যথা কমানোর জন্য ১০ মিনিটের ব্যবধানে ঠান্ডা এবং গরম চাপ দিতে পারেন দিনে কয়েকবার।

২। বিছানা পরিবর্তন করুন  

সকালে পিঠ শক্ত হয়ে যাওয়ার অনুভূতি হলে তা আপনার নরম বিছানার জন্যও হতে পারে। কফম্যান এর মতে, ‘বিছানার ম্যাট্রেস এমন হওয়া উচিৎ যাতে শরীরের শক্ত অংশ যেমন- কাঁধ ও কোমর যেন সামান্য ডুবে থাকে এবং মেরুদণ্ডের অন্য অংশ যেন সমর্থন পায়।  পাশ থেকে দেখে যেন মেরুদন্ডকে সোজা মনে হয়, বাঁকা যেন মনে না হয়’। আপনি কীভাবে ঘুমাচ্ছেন  সেটাও পিঠে ব্যথার কারণ হতে পারে। সবচেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে পাশ ফিরে ঘুমানো বা চিত হয়ে ঘুমানো। উপুড় হয়ে ঘুমানো উচিৎ নয়। উপুড় হয়ে ঘুমালে মাথাটি ঠিক অবস্থানে থাকে না বলে বিভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে।

৩। তাড়াহুড়া করে বিছানা ছাড়া

ঘুম থেকে জেগেই তাড়াহুড়া করে বিছানা থেকে উঠার কারণেও হতে পারে পিঠে ব্যথা। এক্ষেত্রে কফম্যান কিছু নির্দেশনা দিয়েছেন : ঘুম থেকে জাগার পর চিত হয়ে শুয়ে আপনার হাঁটু দুটো ভাজ করুন। হাঁটু দুটো দুপাশে মধ্যম গতিতে ছড়িয়ে দিন। হাঁটু দুটো পেছেনের দিকে ভাঁজ করলেও শরীর সহজ হয় এবং রক্ত চলাচল দ্রুত হয়। ঘুম থেকে জেগেই গোসল করার ক্ষেত্রেও সতর্ক হোন। কফম্যান বলেন, ‘সকালে হাড়ের ডিস্কগুলো আর্দ্র ও পরিপূর্ণ থাকে’।  পর্যাপ্ত নাড়াচাড়া না করে সরাসরি গোসল করতে গেলে ডিস্কগুলোর উপর চাপ পড়ে।

এছাড়াও পিঠে ব্যথার সমস্যা থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য আপনার যা করা প্রয়োজন – কম্পিউটারে কাজ করার সময় সোজা হয়ে বসে কাজ করুন, ড্রাইভিং করার সময় আপনার সিটটি যাতে ১০০ ডিগ্রীতে থাকে সেদিকে খেয়াল করুন, দীর্ঘক্ষণ একভাবে বসে না থেকে কিছুক্ষণ হাঁটাহাঁটি করে আসুন বা স্ট্রেচিং করে নিন, ভালো সোলের জুতা পরুন, ভারী কিছু ওঠানোর সময় উপুড় হয়ে না উঠিয়ে হাঁটু ভেঙ্গে উঠান, ব্যায়াম  করুন।

কমেন্টসমুহ
Secret Diary Secret Diary

Top